শিরোনাম:

কমলাপুরে ঘরমুখো মানুষের উপচে পড়া ভিড়

মাইদুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১১ জুন ২০১৮, সোমবার
প্রকাশিত: 11:38 আপডেট: 4:23
কমলাপুরে ঘরমুখো মানুষের উপচে পড়া ভিড়

দরজায় কড়া নাড়ছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। ঈদ অানন্দ পরিবার পরিজনদের সাথে ভাগাভাগি করতে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে রাজধানীবাসী। ঈদের অগ্রিম টিকিটের হিসেবে আজ সোমবার (১১ জুন) ঈদযাত্রার দ্বিতীয় দিন। এদিন সকাল থেকেই ঘরমুখো মানুষের ভিড় কমলাপুর রেলস্টেশনে। যারা আসছেন তাদের বেশিরভাগ জনের সঙ্গেই ব্যাগ-লাগেজ আছে, অনেকের সঙ্গে আছেন পরিবারের সদস্য ছাড়াও বন্ধু-বান্ধব।

১৩/১৪ ঘন্টা কেউবা তার চেয়েও বেশি সময় কাউন্টারে অপেক্ষার পর ট্রেনের অগ্রিম টিকিট মিলেছিল তাদের, আবার তাদেরই ঘরে ফেরা পর্যন্ত পোহাতে হয় নানা ভোগান্তি। তবুও নাড়ির টানে বাড়ি ফেরা, আর এই বাড়ি ফেরাতেই যেন আনন্দ। সকাল থেকেই ঘরে ফেরা মানুষের ভিড় বাড়ছিল কমলাপুরে, আর তাদের মধ্যে আনন্দের যেন কমতি ছিল না।

গত ২ জুন যারা দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে কাঙ্ক্ষিত টিকিট সংগ্রহ করেছিলেন, তারাই আজ সোমবার কমলাপুর স্টেশন থেকে বিভিন্ন ট্রেনে ঢাকা ছাড়ছেন। সোমবার সকাল থেকেই ঘরমুখো হাজারো মানুষ নিয়ে কমলাপুর রেলস্টেশন ছেড়ে যাচ্ছে ট্রেনগুলো। সব মিলিয়ে ঈদ যাত্রার দ্বিতীয় দিনেও ঘরমুখো মানুষের ভিড়। তবে আগামীকাল থেকে ঘরে ফেরা মানুষের এ ভিড় আরো বাড়বে বলে ধারণা করছেন স্টেশন সংশ্লিষ্টরা।

স্টেশনের মাইক থেকে পুরুষ কণ্ঠে ভেসে আসছে- ‘দিনাজপুর থেকে ছেড়ে আসা একতা এক্সপ্রেস আর অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই ৫ নম্বর প্লাটফর্মে এসে দাঁড়াবে।’

যারা প্ল্যাটফর্মের পাশে বসার জায়গায় বসে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন তারা এমন ঘোষণা শোনার পর লাগেজ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে  ৫ নম্বর কাউন্টারের দিকে সেই সঙ্গে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন ট্রেনে ওঠারও। তাদের মধ্যে একজন সিরাজুল ইসলাম, সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী ও দুই সন্তান। ঈদ উদযাপনে তারা যাবেন দিনাজপুরে।

তিনি বলেন, রাস্তায় অতিরিক্ত যানজট, খানা খন্দ, যে কারনে ট্রেনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত।  আর যেহেতু ঈদের আগের দুই দিন অতিরিক্ত যাত্রী চাপ থাকবে সে কারণে আজ যাওয়া। টিকিট পাওয়ার জন্য দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়েছে কাউন্টারের লাইনে। আর যাত্রা পথে ট্রেনের ভিতরে থাকে অতিরিক্ত যাত্রী চাপ। এমন পরিস্থিতি হয় যেন টিকিট থাকা সত্বেও সেই সিটি পৌঁছানোই যায় না। এরকম পদে পদে ভোগান্তি, তবুও সবাই  ঈদে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরে যায়, আর বাড়ি ফেরা হলে যেন এসব ভোগান্তির কথা কিছুই মনে থাকেনা। এই বাড়ি ফেরাতেই যেন আনন্দ।

৯টা ৪০ মিনিটে ৫ নম্বর প্লাটফর্মে এসে তখন দাঁড়ালো একতা এক্সপ্রেস ট্রেনটি। তখনই ঘরে ফেরা এসব মানুষ দ্রুত ট্রেনে ওঠার চেষ্টা শুরু করেন, আর এমন এক প্রতিযোগিতা শুরু হয় যেন কে কার আগে ট্রেনে উঠতে পারেন।

অন্যদিকে ৪ নম্বর প্লাটফর্মে তখনও অপেক্ষা করছিল জামালপুরগামী অগ্নিবীনা ট্রেনটি।আসনগুলো পরিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েও ছিলেন অনেক যাত্রীরা। তাদের মধ্যে একজন যাত্রী রাজিয়া সুলতানা।

তিনি বলেন, সন্তানদের নিয়ে গ্রামে ঈদ উদযাপনে যাচ্ছি। ট্রেনে আমরা অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ থেকে মুক্তি পেতে ঢাকা ছাড়ছি আজ। আমরা যারা বাহিরে থাকি সে সব মানুষের কাছে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরার থেকেই যেন ঈদের আনান্দ শুরু হয়ে যায়।

রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, আজ কমলাপুর স্টেশন থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে ৬৩টি ট্রেন ছেড়ে যাবে। কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী ঈদ যাত্রা বিষয়ে বলেন, সব ট্রেন সময়মতই ছেড়ে যাচ্ছে।যাত্রী চাপ মোকাবেলায় প্রায় ট্রেনেই অতিরিক্ত বগি লাগানো হয়েছে। এছাড়া বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা রয়েছে। তাই যাত্রীরা নিজেদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে কেউ যেন ট্রেনের ছাদে যাত্রা করবেন না।

ব্রেকিংনিউজ/ এমঅাই/ এসএ 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2