শিরোনাম:

ট্রেন ছাড়‌তে বিলম্ব, ভোগা‌ন্তি‌তে যা‌ত্রীরা

স্টাফ ক‌রেসপ‌ন্ডেন্ট
১৪ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 12:59 আপডেট: 2:33
ট্রেন ছাড়‌তে বিলম্ব, ভোগা‌ন্তি‌তে যা‌ত্রীরা

গত ৫ জুন যারা দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট সংগ্রহ করেছিলেন তারাই আজ কমলাপুর স্টেশন থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়ছেন। সেই লক্ষ্যেই বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই কাঙ্ক্ষিত ট্রেনে ধরতে কমলাপুরে আসছেন যাত্রীরা। সব প্ল্যাটফর্ম জুড়েই শুধু যাত্রী আর যাত্রী। সঙ্গে থাকা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ব্যাগ-লাগেজসহ প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিলেন ট্রেনের কিন্তু তাদের এই অপেক্ষা ক্রমেই দীর্ঘ হচ্ছিল।

কারণ নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও তখনও ট্রেন কমলাপুর স্টেশনে এসে পৌঁছায়নি। নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেন, যেই ট্রেনটি স্টেশন ছেড়ে যাওয়ার কথা সকাল ৮টায় কিন্তু সকাল সোয়া ৯টাতেও ট্রেন এসে পৌঁছায়নি। স্টেশনের ট্রেন ছাড়ার তথ্যাদি সম্মলিত স্ক্রিনে সম্ভব্য সময় ৯টা ৫০মিনিটে ছেড়ে যাবে বলে উল্লেখ করা হয়।

দুই ছে‌লে ও স্ত্রীকে নিয়ে প্ল্যাটফর্মে তখন ট্রেনের অপেক্ষায় বসে ছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী আ‌রিফুল ইসলাম। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আজকের টিকিট কাটার জন্য ১৭ ঘণ্টা অপেক্ষা করে টিকিট পেয়েছিলাম। কিন্তু আজ যাত্রার শুরু হওয়ার পূর্বেই প্রায় দুই ঘণ্টা দেরি করছে নীলসাগর এক্সপ্রেস। এত বিড়ম্বনা কীভাবে মেনে নেয়া যায়?’

এদিকে খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস সকাল ৬টা ২০ মিনিটে ছাড়ার কথা থাকলে তা বিলম্ব হয়ে কমলাপুর স্টেশন ছেড়ে গেছে ৭টা ২৫ মিনিটে। এছাড়া সকাল ৯টায় রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনটি ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও ৯টা ১০মিনিটেও স্টেশনের মাইক থেকে ঘোষণা দেয়া হচ্ছে ‘আর অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনটি ৩  নম্বর প্ল্যাটফর্মে এসে দাঁড়াবে।’ এরপর ৯টা ১৫ মিনিটে ট্রেনটি এসে পৌঁছায়। তবে ট্রেনটি ঠিক কয়টায় ছেড়ে যাবে তা স্ক্রিনে তখনও উল্লেখ করা হয়নি।

দেওয়ানগঞ্জগা‌মী তিস্তা ঢাকা থে‌কে ছে‌ড়ে যাওয়ার কথা সকাল ৭টা ৩০ মিনিটে। কিন্তু ছেড়েছে ৮টা ১৫ মিনিটে দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশালও আধা ঘণ্টা দেরি ক‌রে ছে‌ড়ে‌ছে। দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশাল ট্রে‌নে ব‌সে আ‌ছেন র‌ফিক মিয়া। তি‌নি বলেন, ‘ট্রেন সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে ছাড়ার কথা। সেই ট্রেন ২০ মিনিট দেরি ক‌রে ছে‌ড়ে‌ছে। য‌দি দে‌রিই করবে, তাহলে মাইক দি‌য়ে ব‌লে দি‌লেই তো হয় তাহ‌লে কষ্ট করে গর‌মের ম‌ধ্যে আ‌গেই ট্রেনে উঠতাম না।’

কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্ত্তী বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি সিডিউল ঠিক রাখতে। অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে যাওয়া আসার সময় স্টেশনে উঠা নামা করতে যেখানে ২ মিনিট অপেক্ষা করার কথা সেখান ৫/১০ মিনিট অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এই কারণে ট্রেনটি পৌঁছাতেও কিছুটা দেড়ি হচ্ছে। তবে আমরা চেষ্টা করছি যেন সঠিক সময়েই সব ট্রেন ছেড়ে যেতে পারে।’

ব্রেকিংনিউজ/ এএইচএস/ এসএ 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2