শিরোনাম:

‘এই দেশে আলোচনাই চালানো সম্ভব নয়’

সোস্যাল মিডিয়া ডেস্ক
২১ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 3:56 আপডেট: 3:58
‘এই দেশে আলোচনাই চালানো সম্ভব নয়’

বাংলাদেশের ইন্টেলেকচুয়াল হলো বা বুদ্ধিবৃত্তিক শুন্যতা কেমন দেখুন। আমরা কখনোই অপর বা আদারের চিন্তাকাঠামোকে বিবেচনায় আনতে চাইনা। সে কেন ওভাবে চিন্তা করছে? এই ভাবনাটা কখনোই আমাদের মাথায় আসেনা। অন্যের পয়েন্ট অব ভিউটা আমাদের কাছে কখনোই গুরুত্বপূর্ণ নয়।

আমরা অপরকে শয়তান আর নিজেকে ফেরেস্তা ভাবি। অপরের তরফেও যে একটা শক্তিশালী যুক্তি থাকতে পারে সেটা আমরা বিবেচনায় নেই না। সেই যুক্তি আমরা গ্রহণ করবো কিনা সেটা ভিন্ন আলোচনা। কিন্তু অপরের বক্তব্যটা তার চিন্তা কাঠামোকে পর্যালোচনা না করে সেটাকে বাতিল করে দিলে আমাদের সামষ্টিক চিন্তা এগোয়না।

আমি এটা ফীল করলাম, যখন আমরা থেমিস অপসারণ নিয়ে লড়াই করছিলাম। আমাদের তরফের যুক্তি আর বক্তব্যগুলোকে স্যেকুলার থেমিস প্রেমিকেরা গ্রাহ্যই করছিলোনা। আমি এখনো অনেক স্যেকুলারকে প্রশ্ন করি, আচ্ছা বলেন তো আমরা থেমিসের অপসারণ চেয়েছিলাম কেন? আশ্চর্যকথা হচ্ছে, কেউই বলতে পারেনা, আমরা কেন থেমিসের অপসারণ চেয়েছিলাম। স্যেকুলার শিবিরের সবার মধ্যেই একই ধারণা, আমরা দেশকে মধ্যযুগে নিয়ে যেতে চাই, আমরা ভাস্কর্য বিরোধী কারণ ইসলামে ভাস্কর্যের স্থান নাই। যখন জিজ্ঞাসা করি, তাহলে আমরা যারা ইসলামপন্থী নই তারা কেন থেমিসের অপসারণ চাইলাম? তখন তারা উত্তর দেয় আমরা ইসলামপন্থীদের উস্কিয়ে সরকারকে বিপদে ফেলার জন্য এই কাজ করেছি।

এই হচ্ছে তাদের চিন্তার দৌড়। এই দেশে আলোচনাই চালানো সম্ভব নয়। আলোচনা কীভাবে করতে হয় সেটাই আমরা শিখিনি। সেকারণেই আমরা টেবিলে কোন নেগোশিয়েশন করতে পারিনা। আমাদের রাজনৈতিক বিতর্ক সামাজিক বিতর্ক ধ্রুপদী অমিমাংসায় পর্যবসিত হয়।

ঠিক একইভাবে আপনি জিজ্ঞেস করেন, আচ্ছা জামাত, মাওবাদীদের একাংশ, চাকমা রাজা, বৌদ্ধ নেতা মহাথেরো কেন একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করলো? আমি নিশ্চিত কেউই উত্তর দিতে পারবেনা। আমরা এই প্রশ্নের উত্তর খুজিনি। আমরা এই প্রশ্ন গুলোর সুবিধামতো উত্তর বানিয়ে নিয়েছি। অথচ দেখেন, এই প্রশ্নগুলোর উত্তর আমাদের জানাটা খুব জরুরী। ওই মানুষগুলো খারাপ, ওরা প্রতিক্রিয়াশীল ওরা পাকিপ্রেমী এটা কিন্তু এই প্রশ্নের উত্তর নয়।

অবশ্য আমরা আমাদের এই কালেক্টিভ মুর্খামিকে প্রগতিশীলতা বলে থাকি। বড়ই অদ্ভুত।

(লেখক ও রাজনীতিক পিনাকী ভট্টাচার্যের ফেসবুক পোস্ট থেকে নেয়া)

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2