শিরোনাম:

যুবদল নেতাকে ফিরে পেতে স্বজনদের সাংবাদিক সম্মেলন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ময়মনসিংহ
২৯ জুন ২০১৮, শুক্রবার
প্রকাশিত: 9:41 আপডেট: 9:43
যুবদল নেতাকে ফিরে পেতে স্বজনদের সাংবাদিক সম্মেলন

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে পুলিশ তুলে নেয়া উপজেলা যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক কামরুজ্জামান সোহগকে ফিরে পেতে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে তার পরিবারের স্বজনরা। 

বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) দুপুরে গফরগাঁও প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সন্মেলনে যুবদল নেতার স্বজনরা এ দাবি জানিয়েছেন।

সাংবাদিক সন্মেলনে স্বজনরা দাবি করে লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘গত বুধবার (২৭ জুন) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গফরগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) সাইফুল ও আহসান হাবিবসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যরা বাড়িতে প্রবেশ করে গফরগাও উপজেলা যুবদলের জৌষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক কামরুজ্জামান সোহাগকে তুলে আনেন। এরপর থেকেই তার কোন খোঁজ নেই।’

বৃহস্পতিবার (২৮) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সোহাগের স্ত্রী সানজিদা সুলতানা গফরগাও থানায় গিয়ে এসআই সাইফুলের সাথে দেখা করেন। এসআই সাইফুল প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে সোহাগকে তুলে আনার কথা স্বীকার করে বলেন, সোহাগ ময়মনসিংহ ‘ডিবিতে’ আছে যা করার করেন। সোহাগের স্ত্রী সানজিদার এক দাবী, আমার স্বামীকে পুলিশ দিনের বেলায় তুলে এনেছে। আমি আমার স্বামীকে জীবিত ফেরত চাই।’

সাংবাদিক সন্মেলনে সানজিদার মা মনোয়ারা সুলতানা ও সোহাগের বড় ভাই রিসালত উল্লাহ মিম উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে বুধবার রাত থেকেই পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের দফায় দফায় ফোন করা হলেও কেউ কিছু বলতে পারেননি। এসআই সাইফুলকে ফোন করা হলে ‘একটু পরে জানাচ্ছি’ বলে ফোন বন্ধ করেন দেন।

এদিকে পরিবারের অভিযোগ বুধবার সকালে সোহাগের নিজ বাড়ি উপজেলার বলাইগ্রাম থেকে হোন্ডাযোগে তুলে আনেন পুলিশের এসআই সাইফুলসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যরা।

অন্যদিকে সোহাগের স্ত্রী সানজিদা বৃহস্পতিবার দুপুর দেড় টার দিকে টেলিফোনে এসআই সাইফুলের বিরুদ্ধে গুরুতর  অভিযোগ করে বলেন, আজ সকাল (সাড়ে ১১ টা থেকে ২২ টার মধ্যে আমি (সানজিদা) গফরগাও থানায় গিয়ে এস আই সাইফুলের সঙ্গে দেখা করি। সাইফুল প্রথমে সোহাগের বিষয়ে অস্বীকার করেন। কিন্তু পরে সাইফুল স্বীকার করে বলেন সোহাগ ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা বিভাগের ডিবি কার্যালয়ে রয়েছে। সোহাগকে ফেরৎ দেব যা করার করেন। এই বলে এসআই সাইফুল সোহাগের স্ত্রী সানজিদার কাছে পঞ্চাশ হাজার টাকা দাবী করেন। 

তিনি আরও জানান, পরে ২০ হাজার টাকায় রফা হলে সাইফুলকে দুপুরে আরো ১২ হাজার টাকা দেন সানজিদা। এরপর এস আই সাইফুল আরো ৫ হাজার টাকা বাড়িয়ে ২৫ হাজার টাকা দাবী করেন। কিন্তু এখন বলছেন কিছুই জানি না “যোগ করেন সানজিদা”।

এদিকে আজ দুপুর সোয়া একটায় এস আই সাইফুলকে টাকা নেওয়ার বিষয় জানতে ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করে নাই।

সোহাগ এর আগে ২০১০ সালে এবং গত বছর ১৪ ফেব্রুয়ারি গ্রেফতার হন। তার নামে সরকার বিরোধী নাশকতার ৬টি মামলার কথা জানিয়ে সব মামলায় জামিনে আছেন বলে জানান গফরগাও উপজেলা যুবদলের আহবায়ক সরদার মো খুররম।

ব্রেকিংনিউজ/ এমআর/ এসএ 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2