শিরোনাম:

প্রেম ভাঙে ৫ কারণে

লাইফস্টাইল ডেস্ক
৭ জুলাই ২০১৮, শনিবার
প্রকাশিত: 9:49 আপডেট: 9:50
প্রেম ভাঙে ৫ কারণে

সাহিত্যে কিংবা গল্পগাঁথায় আমরা যে প্রেমের দৃশ্য দেখি তা বাস্তবে অনেকটাই বদলে গেছে। এই ভার্চুয়াল দুনিয়ায় প্রেমেও ভর করেছে কৃত্রিমতা। প্রেম যেন এখন- ‘যখন খুশি ধরো, চাইলেই ছাড়ো’। এই ডিজিটাল সময়ে প্রেমিক কিংবা প্রেমিকারা রাত জেগে কাগজের পর কাগজও ছেঁড়েন না প্রেমপত্র লিখে। এখন ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জার কিংবা একটা এসএমএসেই প্রেম শুরু হয়ে যায়, আবার ভেঙেও যায়। 

তবে যেকোনো সময়েই প্রেমের বড় ভিত্তি হচ্ছে বিশ্বাস। পারস্পরিক সম্মান ও শ্রদ্ধাবোধ। আজকালকার প্রেমিক-প্রেমিকাদের মধ্যে সেগুলোও অভাব দেখা যায়। ভালোবাসার সম্পর্কে একে অপরের সঙ্গে বোঝাপড়া, বিশ্বাস না থাকলে সেই সম্পর্ক প্রাণহীন হয়ে পড়ে। শুরু হয় টানাপোড়েন। প্রতিটি সম্পর্ক নষ্ট হয় নিজেদের কারণেই। 

সাধারণত যে ৫ কারণে প্রেমের সম্পর্কে চিড় ধরে:

১. প্রেমিক-প্রেমিকাদের মধ্যে আজকাল একাধিক সম্পর্কে জড়ানোর প্রবণতা বাড়ছে। ফলে তারা কথাও রাখতে পারছে না ঠিকঠাক। আর এই কথা না রাখাই সম্পর্কের ভাঙন তৈরি করে একটা পর্যায়ে। 

২. কথায় আছে- ‘ঘরে যদি শান্তি চাও তবে স্ত্রীর কাছে নত হতে শেখো’। চলার পথে আমরা সবাই ভুল করি। কেউই ভুলের ঊর্ধ্বে নয়। কিন্তু কোনো ভুল করার পরও স্বীকার করে ক্ষমা না চাওয়া দায়িত্বহীনতার লক্ষণ। এমন আচরণ সম্পর্কে ফাটল তৈরি করে।

৩. এক সঙ্গে চলতে গেলে বন্ধু কিংবা সহকর্মীদের সঙ্গে চলতেই হয়। এর মাঝে আড্ডা খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। কিন্তু সঙ্গীকে সময় দেওয়ার চেয়ে অন্যত্র আড্ডা যদি বেশি গুরুত্ব দেন তাহলে সম্পর্কের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

৪. মোবাইলে কাউকে বার্তা পাঠাবেন, কিন্তু সঙ্গীর কাছে বসে সেটা করছেন না। বার্তাটি লিখতে সঙ্গীর পাশ থেকে উঠে অন্য জায়গায় যাওয়ার অভ্যাস খুব সহজেই যে কারো নজরে পড়বে। এমন অভ্যাস সঙ্গীর নজরে আপনার প্রতি সন্দেহের জন্ম দেয়। অনেক সময় এমনিতেই অনেকে কল কিংবা ম্যাসেজ করতে পাশে সরে যান। কিন্তু আপনার এই ধরনের অভ্যাস সঙ্গীর মনে সংশয় তৈরি করছে কি না, তা অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে।

৫. একাধিক সম্পর্কে জড়ানো কিংবা ভাচুয়ালি সময় নষ্ট করার কারণে অনেক সময়ই মুঠোফোনে সহজেই মিথ্যা কথাটাকে সত্যি বানিয়ে প্রেমিকার সামনে উপস্থাপন করা হয়। ধরুন কোনো এক কফি শপে সহকর্মীর সঙ্গে প্রয়োজনেই বসে আছেন, অথচ ফোনে সঙ্গীকে জানালেন আপনি অফিসে। এ ধরনের মিথ্যা কথা সন্দেহ সৃষ্টি করে। একটা সময় বহু সাধনার সম্পর্কটাকেই ভেঙে চুরমার করে দেয়। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2