শিরোনাম:

জবিতে ছাত্রলীগের তাণ্ডব, ৫ সাংবাদিকসহ আহত ২০

জবি করেসপন্ডেন্ট
৮ জুলাই ২০১৮, রবিবার
প্রকাশিত: 5:19 আপডেট: 5:23
জবিতে ছাত্রলীগের তাণ্ডব, ৫ সাংবাদিকসহ আহত ২০<br />

দেশের বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ ও পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) মিছিল ও সমাবেশরত প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতা-কর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়েছে জবি শাখা ছাত্রলীগের উচ্ছৃঙ্খল কর্মীরা। এতে ৫ সাংবাদিকসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন। 

রবিবার (৮ জুলাই) দুপুরে জবি ক্যাম্পাসের ভাস্কর্য চত্বরের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গুরুতর আহত অবস্থায় সাংবাদিক আসলাম অর্ক ও লতিফুল ইসলাম, শাখা ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি রুহুল আমিন, ছাত্রফ্রন্ট  সভাপতি কিশোর কুমার ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বিসহ প্রগতিশীল ছাত্র নেতা সমিত ভৌমিক, অনিমেষ রায়, খাইরুল হাসান জাহিনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদের ক্যাম্পাসেই প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়।

আহত শাখা ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি কিশোর কুমার ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের ছাত্রলীগের হামলা নিপীড়নের প্রতিবাদে মিছিল ও সমাবেশ করে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। ক্যাম্পাসে মিছিল শেষে ভাস্কর্য চত্বরে সমাবেশ শুরু করে বক্তব্য দিতে থাকেন নেতারা। এসময় জবি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের গ্রুপের জুনিয়র কর্মীরা অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। এতে সাংবাদিকসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, ছাত্রলীগ কর্মীরা এতো উচ্ছৃঙ্খল ছিল যে তাদের সাংবাদিক পরিচয় দিয়েও নিবৃত্ত করা যায়নি। এমনকি তাদের চেয়েও অনেক সিনিয়রদেরকে তারা লাঠি, ইটসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এসময় তিনি হামলাকারী ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে গণিত বিভাগের পরাগ, রিয়াজ, হৃদয়ের নাম প্রকাশ করেন। 

এদিকে অভিযোগ আছে, শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের প্রত্যক্ষ মদদে এ হামলা চালানো হয়েছে। নির্দেশের বিষয়টি একাধিক ছাত্রলীগ কর্মীও নিশ্চিত করেছেন।  

হামলার শিকার একজন সাংবাদিক ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আমি সাংবাদিক পরিচয় দেয়ার পরেই বেশি করে আমার ওপর চড়াও হয় ছাত্রলীগ কর্মীরা।’ 



এদিকে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের পক্ষথেকে বলা হয়েছে, সমাবেশের সময় সাধারণ শিক্ষার্থীরা ভাস্কর্য চত্বরে জড়ো হলে রিয়াজ মাহমুদের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা তাদেরকে জোর করে ক্লাসে পাঠানোর চেষ্টা করে এবং শিবির বলে হামলা চালায়।

এ বিষয়ে জবি ছাত্রলীগের সভাপতি তরিকুল ইসলাম ব্রেকিংনিউজকে বলেন, আজ যা হয়েছে তা অন্যায় হয়েছে। ছাত্রলীগের জুনিয়র ছেলেরা এসব করেছে। আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো। নির্দেশ দেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘যারা এ অভিযোগটি করেছে তারা আমাকে ভুল বুঝেছেন।’ 

তবে হামলায় দায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ওপর চাপিয়েছেন জবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জয়নুল আবেদীন রাসেল। তিনি বলেন, ‘যারা হামলা চালিয়েছে তারা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান।’  

এদিকে ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান’ এর জবি শাখার সভাপতি নাঈমুর রহমান বলেন, ‘আমরা এ হামলার সাথে জড়িত নই।’ 

এ বিষয়ে জবি প্রক্টর ড. নুর মোহাম্মদ ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘যারা এমন করেছে তাদের বিরুদ্ধেও আমরা ব্যবস্থা নেবো। হামলার শিকার যারা হয়েছেন তাদেরকে লিখিত অভিযোগ দেয়ার জন্য বলছি। তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে সিসি টিভি ফুটেজ দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ 

ক্যাম্পাসে সাংবাদিকের ওপর পূর্বেও হামলার ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু বিচার হয়নি। এবার এমনটি হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পূর্বেও এমন ঘটনায় অভিযুক্তদের  বহিষ্কার করা হয়েছে। এবারও অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।’  

ব্রেকিংনিউজ/আরআই/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2