শিরোনাম:

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্নস্থানে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৪

নিউজ ডেস্ক
১১ জুলাই ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 9:35 আপডেট: 10:15
রাজধানীসহ দেশের বিভিন্নস্থানে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৪
ফাইল ছবি

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মাদকবিরোধী অভিযানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধের খবর পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার ভোর পর্যন্ত চলা এসব অভিযানে ৪ মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।

এদের মধ্যে রাজধানীর কেরানীগঞ্জে ১ জন, কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় দুইজন ও নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

কেরানীগঞ্জ: কেরানীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’মো. নুরা ওরফে নুরু (৪৫) নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন।

বুধবার (১১ জুলাই) ভোরে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ডায়মন্ড মেলামাইন কারখানার সামনে এ ‌‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়।

মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের জানান, লাশটির ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

কুষ্টিয়া:

কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ফুটু ওরফে মোন্না (৩৫) ও রাসেল আহম্মেদ (৩০) নামে দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়ে‌ছেন।

বুধবার (১১ জুলাই) ভোরে উপ‌জেলার কূর্শা ইউনিয়নের আনান্দ বাজার বালুচর সংলগ্ন জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ  ঘটনা ঘটে। র‌্যাবের দাবি এ ঘটনায় তাদের ২ সদস্য আহত হয়ে‌ছেন। 

র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মোহাই মিনুল জানান, মাদক কেনা-বেচা করতে একদল মাদক ব্যবসায়ী মিরপুর উপ‌জেলার কূর্শা ইউনিয়নের আনান্দ বাজার বালুচর সংলগ্ন জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে অবস্থান করছে-
এমন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের কুষ্টিয়া ক্যাম্পের একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। 

বিষয়টি টের পে‌য়ে মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছো‌ড়ে। এতে র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হন।  জবাবে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালালে একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থে‌কে ১টি বি‌দেশী পিস্তল, ১টি ‌দেশী পিস্তল, ১২ রাউন্ড গুলি ও বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়ে‌ছে।  

এসময় ঘটনাস্থলে দুইজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাৎক্ষণিক তাদের কুষ্টিয়া জেনা‌রেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। লাশ দুটির ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

তিনি জানান, খোঁজ নিয়ে জানা যায় নিহত দুইজনই মাদক ব্যবসায়ী। তাদের একজনের নাম ফুটু ওরফে মোন্না। তিনি রাজারহাট মোড় এলাকার মৃত আহম্মদ আলীর ছেলে।

অন্যজনের নাম রাসেল আহম্মেদ। তিনিও রাজারহাট মোড় এলাকার বাসিন্দা। তার বাবার নাম রবিউল ইসলাম।

নাটোর:

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ওসমান গণি (৩৮) নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় দুই র‌্যাব সদস্য আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (১০ জুলাই) রাত ১১টা ৪০ মিনিটে উপজেলার বাহিমালি এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে। 

নিহত ওসমান উপজেলার গুরুমশইল গামের মৃত মনসুর আলীর ছেলে। আহতরা হলেন- সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মনজুর আহমেদ ও কনস্টেবল এনামুল হক।

র‍্যাব-৫, নাটোর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর শিবলী জানান, নাটোর ক্যাম্পের একটি টহল দল রাত ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে উপজেলার বাহিমালী এলাকায় পৌঁছায়। এসময় সেখানে কিছু লোকের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হওয়ায় র‌্যাব সদস্যরা তাদের দিকে এগোতে থাকে। 

র‌্যাব সদস্যদের এগিয়ে আসতে দেখে তারা দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এসময় র‌্যাব তাদের থামতে বললে তারা র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মনজুর আহমেদ ও কনস্টেবল এনামুল হক আহত হন। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব গুলি ছুঁড়লে দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়। 

উভয় পক্ষের মধ্যে প্রায় ৫ মিনিট গোলাগুলি চলে। একপর্যায়ে তারা পালিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থলে একব্যক্তিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাৎক্ষণিক তাকে বড়াইগ্রাম উপজলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনাস্থল থেকে একটি ৭.৬২ বিদেশী পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলি ভর্তি একটি ম্যাগাজিন, গুলির ১ টি খালি খাসা,  সাদা পলিথিনে মোড়ানো বাদামী রংয়ের ৪১০ গ্রাম হেরাইন, নগদ ১ হাজার চারশত দশ টাকা এবং একটি চার্জার লাইট উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি জানান, খোঁজ নিয়ে জানা যায় নিহত ব্যক্তির নাম ওসমান গণি। তার বিরুদ্ধে নাটোরের বিভিন্ন থানায় মাদক ও চাঁদাবাজিসহ ৫টি মামলা রয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/এনকে

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2