শিরোনাম:

৪ দিন ধরে নিখোঁজ এক তরুণ স্থপতি

তৌহিদুজ্জামান তন্ময়
১১ জুলাই ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 11:50 আপডেট: 12:12
৪ দিন ধরে নিখোঁজ এক তরুণ স্থপতি
সন্তানের সঙ্গে মাহফুজ নবীন

আবাসন নির্মাতা কোম্পানি শেলটেকের এক স্থপতি মো. মাহফুজ নবীন (৩৭) গত ৪ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। নিজ বাসা থেকে অফিসের উদ্দেশে বের হয়ে নিখোঁজ রয়েছেন বলে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছে তার পরিবার।

পুলিশ ও র‌্যাবের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ওই নামে কেউ আটক থাকার কোনো তথ্য তাদের হাতে নেই। ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে খোঁজ নিয়েও নবীনের কোনো তথ্য পায়নি তার পরিবার।  

গত রবিবার (৮ জুলাই) সকালে কলাবাগানে অফিসে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বের হওয়ার পর তিনি আর ফেরেননি বলে তার স্ত্রী জান্নাতুল এশা জানিয়েছেন।

মাহফুজ নবীন রিয়েল এস্টেট কোম্পানি শেলটেকের স্থপতি হিসেবে চাকরি করেন। তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগ থেকে পড়াশোনা করেছেন। তার স্ত্রীও একজন স্থপতি। 

এশা জানান, ‘মাহফুজ গত রবিবার সকালে ভাসানটেকের বাসা থেকে কলাবাগানে অফিসে যাওয়ার জন্য বের হন। পরে তিনি তাকে এসএমএস দিয়ে জানান তার মোবাইল ফোনে চার্জ শেষ। অফিসে গিয়ে দুপুরে ফোন দেবেন। কিন্তু দুপুরের পর অফিসে তিনি ফোন দিলে জানতে পারেন মাহফুজ অফিসে যাননি। এরপর গত সোমবার তিনি মাহফুজ নিখোঁজের বিষয়ে ভাসানটেক থানায় একটি জিডি করেন। তিনি এ ঘটনা র‍্যাবকেও জানিয়েছেন।’

শেলটেকের তথ্য বিভাগের কর্মকর্তা শেখ হাফিজুর রহমান ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আমাদের অফিসে মাহফুজ নবীন গত ২-৩ মাস যাবত কাজ করতো। আগের দিনেও অফিস করেছিলো। আমরা জানতে পারি রবিবার অফিসে আসার সময় তিনি নিখোঁজ হন।’

অফিসে কোনো ঝামেলা ছিল কি-না এমন প্রশ্ন জানতে চাইলে শেলটেকের ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘অফিসে মাহফুজ সাহেবের কোনো ঝামেলা ছিল না।’

ভাষানটেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুন্সী ছাব্বীর আহমেদ ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘মাহফুজ নবীনের মোবাইল অন করে না। সে স্বাভাবিকভাবে বাসা থেকে বের হয়েছিল। এরপর বুথ থেকেও টাকা উঠিয়েছে। এরপর তার আর কোনো হদিস মিলছে না।’

এ ব্যাপারে তদন্তাধীন পুলিশের কর্মকর্তা ভাষানটেক থানার এসআই রুহুল আমিন ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘মাহফুজের পারিবারিক কিংবা অন্য কারও সঙ্গে কোনো বিরোধ নেই। ভাসানটেকের ধামাল কোটের বাসা থেকে কলাবাগানের অফিসের উদ্দেশে বের হন ১২টা ২০ মিনিটে। কচুক্ষেত এলাকায় একটি ব্যাংকের বুথ থেকে তার কার্ড ব্যবহার করে ২০ হাজার টাকা তোলেন। এরপর দুপুর ১টা ৩৫ মিনিটে তার সর্বশেষ অবস্থান জিপিএস ট্র্যাক করে লোকেশন জানা যায় দারুস সালাম। এরপর থেকেই তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। বুথ থেকে টাকা তোলার ভিডিও ফুটেজের জন্য ব্যাংক কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করা হয়েছে। হয়তো আজই আমরা ভিডিও ফুটেজ হাতে পাবো।’

কোনো জঙ্গি সংশ্লিষ্ট আছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এখনও বলা সম্ভব হচ্ছে না। তবে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

মাহফুজ নবীনের স্ত্রী জান্নাতুল এশা ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘মঙ্গলবার পুলিশের সাথে আমরা র‍্যাব-৪ এ গেয়েছিলাম। র‍্যাব জানিয়েছে আমার স্বামীকে উদ্ধারের জন্য তারাও চেষ্টা করবে।’

পরকীয়ার অথবা জঙ্গি আলামতের ব্যাপারে জানতে চাইলে এশা জানান, ‘আমাদের বিয়ে হয়েছে প্রায় চার বছর। বাচ্চার বয়স তিন বছর হবে। বাচ্চাটা শারিরীকভাবে অসুস্থ হলেও ওর বাবা বাচ্চাটাকে খুব আদর করে। সে একজন আদর্শ পিতা। কোনোভাবেই আমার স্বামী জঙ্গিবাদের সাথে জড়িত না।’

ব্রেকিংনিউজ/ টিটি/ এসএ 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2