শিরোনাম:

‘সুবিধাবাদী হিসেবে উনি প্রথম সারিতে থাকবেন’

নিউজ ডেস্ক
৩০ আগস্ট ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 9:00 আপডেট: 9:03
‘সুবিধাবাদী হিসেবে উনি প্রথম সারিতে থাকবেন’

বাংলাদেশের রাজনীতির বাতাসে বইছে নানাদিকের হাওয়া। কেউ একই কথা বারবার বলছেন, কেউ পুরনো কথা নতুন করে বলছেন। অনেক রাজনীতিক ই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চাইছেন শক্তিশালী জোট গড়তে। যেই জোট তৃতীয় শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হবে।

এমনই এক সময়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল নিজের ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সুবিধাবাদী হিসেবে বাংলাদেশে যদি কাউকে আন্তর্জাতিক পুরস্কারের ব্যবস্থা করা যায়, তাহলে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন প্রথম সারিতে থাকবেন।’

বৃহস্পতিবার (৩০ আগস্ট) বিকেলে নিজের ফেসবুক দেয়া এক স্ট্যাটাসে তিনি এ কথা বলেন। এমন বর্ষীয়ান একজন রাজনীতিক এবং সংবিধান প্রণেতাকে হঠাৎ এমন কথা বলাটা অনেককে অবাক করতে পারে। কিন্তু অবাক হবার কিছু নেই, কিছুদিন আগেই যে ড. কামাল বি. চৌধুরী সহ বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে জোট গড়তে বসেছেন।

মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘ড. কামাল হোসেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ হিসেবে আশি-নব্বইয়ের দশক সুপ্রিমকোর্ট বার বেঞ্চ সবখানেই প্রভাবশালী ছিলেন। বঙ্গবন্ধু তাকে তরুণ বয়সে মূল্যায়ন না করলে, বহু পিএইচডি ডিগ্রিধারীদের মতোই গতানুগতিক থাকতেন। বঙ্গবন্ধু দিয়েছিলেন বলেই মন্ত্রী-বিশেষজ্ঞ কত কিছুই তিনি হয়েছিলেন।’  

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচারের পথরোধকারী ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ সংবিধানে পঞ্চম সংশোধনী পাস করে অকাট্য আইন বলে ধার্য হলো, সেই সংশোধনীকে চ্যালেঞ্জ বা সেই অধ্যাদেশকে চ্যালেঞ্জ তিনি তো করলেনই না, বরং স্বৈরাচারী সরকারগুলোর সময় পেট্রোবাংলার ওকালতি, বিদেশে বাংলাদেশের ওকালতি করে ব্যাপক ব্যাংক ব্যালেন্স করে সবটাই বিদেশে রাখলেন। আর রাজনীতিতে কিছু লিপ সার্ভিস দিয়ে নিজের প্রাসঙ্গিকতা বজায় রাখলেন।’  


আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘সুবিধাবাদী হিসেবে বাংলাদেশে যদি কাউকে আন্তর্জাতিক পুরস্কারের ব্যবস্থা করা যায় উনি (ড. কামাল হোসেন) প্রথম সারিতে থাকবেন। আইনের কথা বলা, নীতির কথা বলা ড. কামাল, জামায়াতের বিরুদ্ধে, বিএনপির বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদ পোষার ব্যাপারে কিছুই বলেন নাই। উনি রাজনীতিবিদ হিসেবে ব্যর্থ একজন ব্যক্তি, উকিল হিসেবে নিজের ব্যাংক ব্যালেন্সের বিষয়ে ব্যাপক সফল, এটাতে সন্দেহ নাই।’

ব্রেকিংনিউজ/এসএএফ

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2