শিরোনাম:

বোতসোয়ানার অভয়ারণ্যে ৮৭ হাতিকে হত্যা

পরিবেশ ডেস্ক
৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: 7:53 আপডেট: 11:07
বোতসোয়ানার অভয়ারণ্যে ৮৭ হাতিকে হত্যা

দক্ষিণাঞ্চলীয় আফ্রিকার ভূ-বেষ্টিত রাষ্ট্র বোতসোয়ানার একটি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য থেকে ৮৭টি হাতির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। অভয়ারণ্যটির নাম ওকাভাঙ্গা ডেল্টা ওয়াইল্ডলাইফ স্যাংচুয়ারি। চোরা শিকারিরাই এসব হাতিগুলোকে হত্যা করেছে বলে দাবি হাতি সংরক্ষণবাদী সংস্থা ‘এলিফ্যান্টস উইদাউট বর্ডার্স’ এর। 

আফ্রিকার এ দেশটিতেই বিশ্বের সবচেয়ে বেশি হাতির বাস। সংস্থাটির এই ঘটনাকে এখন পর্যন্ত বিশ্বের সর্ববৃহৎ হাতি শিকারের ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করেছে। চোরা শিকারিরা গত তিন মাসের ব্যবধানে ওই বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে ৫টি সাদা গণ্ডারকেও হত্যা করেছে বলে জানিয়েছে হাতি সংরক্ষণবাদী সংস্থাটি।
 
এলিফ্যান্টস উইদাউট বর্ডার্সের মাইক চেজ বিবিসি’কে বলেছেন, ‘আকাশ পথে একটি জরিপ চালানোর সময় তারা অভয়ারণ্যে মৃত হাতিগুলোর দেহাবশেষ দেখতে পায়। হাতিগুলোর দেহাবশেষ আবিষ্কারের ঘটনায় তিনি অত্যন্ত শোকাহত। তাদের দাঁতগুলো খুলে নেয়া হয়েছে। আমি স্তম্ভিত। একেবারেই হতবুদ্ধি। এ যাবৎকালে আফ্রিকায় যত হাতি হত্যার ঘটনা শুনেছি বা পড়েছি তাতে এবারের ঘটনাই সবচেয়ে বড়।’
 
বর্তমানে বোতসোয়ানায় প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজার হাতির বসবাস। তানজানিয়ার মোট হাতির ৩ গুণ এই সংখ্যা এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মোট হাতির চেয়ে ৮ গুণ।
 
বোতসোয়ানার শিকার-বিরোধী ইউনিট মে মাস থেকে বাজেট ঘাটতিতে ভুগছে। দেশটির নতুন প্রেসিডেন্ট মোকগোয়িতসি মাসিসি শপথ গ্রহণের ক’দিন পরই তাদের বাজেট কমিয়ে দেয়া হয়। এরপর থেকে দেশটিতে হাতি শিকারিদের তৎপরতা হুট করেই বেড়ে যায়। 

উল্লেখ্য, এক দশকে আফ্রিকার এক তৃতীয়াংশ হাতি শিকারিদের হাতে মারা পড়েছে বলে ২০১৫ সালের ওই জরিপে উঠে এসেছিল। তানজানিয়ার ৬০ শতাংশ হাতি মাত্র ৫ বছর সময়ের মধ্যে নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছিল বলেও বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত হয়েছিলেন। তবে বোতসোয়ানার সরকার এ ব্যাপারে যথেষ্ট কঠোর বলে পরিবেশবাদীদের কাছে সুনাম আছে। কিন্তু এবার সেখানেও চোরা শিকারিরা একসঙ্গে ৮৭টি হাতিকে হত্যা করলো।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2