নওগাঁয় বেড়েছে চালের দাম

নওগাঁ প্রতিনিধি
১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ০৪:৫৯ আপডেট: ০৫:০১

নওগাঁয় বেড়েছে চালের দাম

পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি রেকর্ড ছাড়িয়েছে। দুদিন আগেও প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে তা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ২৪০ থেকে ২৫০ টাকা। একই সাথে বেড়েছে চালের দামও। খাদ্য উৎপাদনে উদ্বৃত্ত উত্তরাঞ্চলে মধ্যে ধান-চালের সবচেয়ে বড় মোকাম নওগাঁ। চালের দাম বৃদ্ধির প্রভাব পরেছে নওগাঁর বড় চাল বাজারেও। হঠাৎ করে চালের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। খুচরা বাজারে প্রতিকেজি স্বর্ণা-৫ জাতের চাল পূর্বে ছিল ২৮ টাকা বর্তমানে ৩০ টাকা, জিরা-পূর্বে ছিল ৩৭-৩৮ বর্তমানে ৪০ টাকা এবং কাটারিভোগ চাল-পূর্বে ছিল ৪৭ টাকা বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা।

খুচরা চাল ব্যবসায়ী নাছির উদ্দিন জানান, হঠাৎ করেই চালের দাম কেজিপ্রতি ২ থেকে ৩ টাকা বেড়েছে। ফলে চালের মোকাম থেকে বেশি দামে চাল কিনতে হচ্ছে এবং বেশি দামেই চাল বিক্রি করতে হচ্ছে।
 
নওগাঁর খুচরা বাজারে চাল কিনতে আসা ক্রেতা সুমইয়া আক্তার জানান, হঠাৎ করেই চালের এমন মূল্য বৃদ্ধিতে বেশ বিপাকে পড়তে হচ্ছে তাকে। যারা চাকুরী করি তাদের তো মাসিক একটা বাজেট থাকে। হঠাৎ করে এভাবে চালের দাম বাড়লে আমাদের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয়। বিশেষ করে সবচেয়ে বেশি হিমশিম খেতে হয় নিন্ম আয়ের মানুষদের। যেকোন মূল্যে চালের বাজার স্থিতিশীল রাখার দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে ফারিহা রাইচ মিল মালিক শেখ ফরিদ উদ্দিন জানান, নওগাঁয় ছোট বড় মিলে প্রায় ১২শ' অটোমেটিক ও হাসকিং মিল রয়েছে। কোন সিন্ডিকেট নয়; সরকারের ধান-চাল ক্রয়ের ঘোষণায় বাজারে ধানের দাম বাড়ায় কিছুটা বেড়েছে চালের দাম। যার প্রভাব পরেছে নওগাঁর চাল বাজারে।

নওগাঁ ধান ও চাল আড়তদার ব্যবসায়ী সমিতি সভাপতি নিরদ বরণ সাহা চন্দন বলেন, জিরাশাইল, আটাস ও উনত্রিশ বছরে একবার বোরো মৌসুমে উৎপাদন হয়ে থাকে। আর সারা বছর ব্যবহার করা হয়। বছরের সাত মাস পেরিয়ে গেছে। এদিকে- কৃষক ও ব্যবসায়ীদের কাছে ধানের পরিমাণ কমে এসেছে। এই ধান দিয়ে আরো পাঁচ মাস চালাতে হবে। যার কারণে বাজার কিছুটা উর্ধ্বমূখি। প্রতিবছরের এই সময়ে এসে চালের দাম কিছুটা বেড়ে যায়।
 
তিনি আরো বলেন, দীর্ঘদিন থেকে চিকন চালের দাম কম থাকায় সব শ্রেণির মানুষ এ চাল ব্যবহার করেছে। ‘ভারত থেকে ‘সম্পাকাটারি’চালের আমদানি বন্ধ হওয়ায় জিরাইশলের উপর চাপ পড়েছে।’এদিকে সরকার কৃষকদের ধানের দাম দিতে চাইছেন। যার কারণে ধানের দাম ২৬ টাকা কেজি নির্ধারণ করা হয়েছে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ধান ও চালের বাজার কিছুটা উর্ধ্বগতি হবে। আমরা মনে করি এটা নিয়ে ঘাবড়ানোর (হতাশ) কিছু নেই।

জেলা চাউল কল মালিক সমিতি সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ হোসেন চকদার বলেন, সরকার ২৬ টাকা দরে ৬ লাখ মেট্রিকটন ধান সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে সংগ্রহ করবেন। এছাড়া ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে ৩৬ টাকা কেজি দরে সাড়ে তিনলাখ মেট্রিকটন সিদ্ধ চাল ও ৩৫ টাকা কেজি দরে ৫০ হাজার মেট্রিকটন আতব চাল সংগ্রহ করবেন। যা একটি নজিরবিহীন ঘটনা। যা পূর্বে কখনোই সরকার এমন সংগ্রহ কার্যক্রম করেনি। কৃষকদের ধানের ন্যায্য দাম দিতে এবং ব্যবসায়ীদের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সরকার পর্যায়ক্রমে উদ্যোগ নিয়েছে। যার কারণে ধান ও চালের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।

আমন ধান কাটা-মাড়াই শুরু হলেও এখনো বাজারে আসতে আরো এক সপ্তাহ সময় লাগতে পারে বলে জানান তিনি।

ব্রেকিংনিউজ/ এমজি

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : editor. breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : editor. breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি