৪ ভাই ‘একঘরে’, জুম্মা পড়তে হয় পাশের গ্রামে

ইসাহাক আলী, নাটোর
৮ জুলাই ২০২০, বুধবার
প্রকাশিত: ০৫:২১

৪ ভাই ‘একঘরে’, জুম্মা পড়তে হয় পাশের গ্রামে

খাস জমির দখল ছেড়ে দিয়েও রেহায় পায়নি নাটোরের সিংড়া উপজেলার ইটারী ইউনিয়নের দুর্গম বুড়িকদমা গ্রামের বাসিন্দা চার ভাই আব্দুল মান্নান, মোস্তফা,মোতালেব ও মহব্বত। গ্রাম্য সালিশে দীর্ঘদিন ধরে একঘরে করে রাখা হয়েছে ওই ৪ পরিবারকে। মাতবরদের হুকুম গ্রামের কোন মানুষ তাদের সাথে কথা বললে ৫০০ টাকা জরিমানা গুনতে হবে। ঘরের পাশে মসজিদে নামাজ পড়তে নিষেধ থাকায় তারা গ্রামে নামাজ পড়তে পারেন না। জুমআর নামাজ পড়তে যেতে হয় অন্যগ্রামের মসজিদে। 

অথচ আব্দুল মান্নান গ্রামের মসজিদের কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘ কয়েক বছর। এখন গ্রাম প্রধানদের হুমকির মুখে দুরের গ্রামে গিয়ে নামাজ আদায় করতে হচ্ছে তাদের চার ভাইয়ের পরিবারের সদস্যদের। এক ঘরে রাখা ওই চার পরিবারের সাথে সম্পর্ক রাখায় গ্রাম ছাড়তে হয়েছে ফটিক নামে একজনকে। এছাড়া জাহিদুল নামে এক প্রতিবেশী মান্নানদের সাথে সম্পর্ক রাখায় তার বাড়ির সামনে বেড়া দিয়ে চলাচলের প্রতিবন্ধতা সৃষ্টি করেছে।

সরেজমিনে জানা যায়, প্রায় ৮ মাস আগে জিল্লুর রহমান নামে এক ব্যক্তি ওই গ্রামে সরকারি জমি দখল করে বাড়ি করে। এ সময় মান্নান পক্ষ মাদরাসা নির্মাণের প্রস্তাব দিলে শুরু হয় বিরোধ। গড়ে ওঠে দু’টি পক্ষ। ওই জিল্লুরের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাকে বসবাসের সুযোগ দেয়ার অভিযোগ ওঠে। প্রতিপক্ষ তাকে বসবাসের সুযোগ দেয়া নিয়ে শুরু করে বিরোধ। মান্নান ও তার ভাইদের কোণঠাসা করার জন্য রাতারাতি গ্রামের কিছু মাতব্বর একজোট হয়। পরবর্তীতে মান্নানের বাড়ির পাশে তাদের ভোগদখলকৃত ২০ শতক জমিতে ঈদগাহ মাঠ নির্মাণের প্রস্তাব দেয় মান্নানের প্রতিপক্ষ গ্রামের মাতব্বররা। তারা দিতে অস্বীকৃতি জানালে রাতের আধারে মান্নানের দখলকৃত জমির সকল গাছপালা, সবজি বাগান বিনষ্ট করা হয়। পরে শালিসে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ৭৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়।

ওই গ্রামে গিয়ে আরও জানা যায়, ওই গ্রামে রয়েছে ঈদগাহ, কবরস্থান ও ১টি মসজিদ। কবরস্থানের পাশেই ঈদগাহ মাঠে ঈদের নামাজ পড়া হয়। ঈদগাহ মাঠ থাকা সত্ত্বেও এলাকার মাতব্বর রেজাউল, আব্দুর রশিদ, আনিসুর, হাবিল, হামিদুল, রশিদ, আনসার ও রনির নেতৃত্বে দল গঠন করে কোণঠাসা করার জন্য মান্নানের বাড়ির সাথে ঈদগাহ মাঠ করা হয়েছে। কোণঠাসা করা হয়েছে মান্নান, তার ভাই মোস্তফা, মোতালেব ও মহব্বতকে। তাদের সাথে গ্রামের কাউকে কথা বলতে দেয়া হয় না। কথা বললে ৫০০ টাকা জরিমানার নির্দেশ রয়েছে। মান্নান ও তার পরিবারের ছেলে মেয়েদের সাথে খেলতে বারণ করা রয়েছে।

আব্দুল মান্নানসহ এক ঘরে করে রাখা ওই চার পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, তাদের গ্রাম ছাড়া করার পরিকল্পনা করেছে প্রতিপক্ষরা। একঘরে করে তারা চুপ করে নেই। নতুন নতুন ষড়যন্ত্র করে তাদের কিভাবে গ্রামছাড়া করবে তা নিয়েই তরা ব্যস্থ রয়েছে। সম্প্রতি তারা ভূমিদস্যু আখ্যা দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করে প্রতিপক্ষ গ্রুপ। অথচ গ্রামের ২১ বিঘা খাসজমি প্রতিপক্ষ ওই গ্রুপের লোকজন ভোগদখল করে আসছে।

ভুক্তভোগী আব্দুল মান্নান জানান, আমরা ৪ ভাই। এখানে আমরা আদি বাসিন্দা। বর্তমানে আমাদের একঘরে করে রাখা হয়েছে। গ্রামের সকল কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা হয়েছে। মূলত আমাদের গ্রামছাড়া করতে মরিয়া ওই পক্ষ। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, সে কারণে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে যাচ্ছি। তারা আমাদের যেকোন সময় প্রাণনাশ করতে চায়। আমরা আইনের মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধান চাই।

প্রতিবেশী জাহিদুল ইসলাম জানান, আব্দুল মান্নান ও তার ভাইয়েরা খেটে খাওয়া মানুষ। তাদেরকে অন্যায় ও জুলুম করা হচ্ছে। আমি সত্য কথা বলায় আমার বাড়ির সামনে বেড়া দেয়া হয়েছে। আমার যাতায়াতে বাঁধা সৃষ্টি করা হয়েছে। আমাকে অকট্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়। 

তবে এ ব্যাপারে কথা বলতে বাড়িতে গিয়েও গ্রাম প্রধানদের কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে তাদের স্ত্রী সন্তানরা বলেছেন, গ্রামের কেউ কাউকে একঘরে করে রাখেনি। মান্নানরা চার ভাই গ্রামের মানুষদের বিপদে ফেলতে নানা ফন্দি ফিকির করে যাচ্ছে। নিজেরাই এক ঘরে হয়ে রয়েছে। কাউকে জরিমানা করার কথা সত্যি না। 

এদিকে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মান্নান ও তাদের পরিবারকে একঘরে করে রেখেছে স্থানীয় কিছু ব্যক্তি। ফটিক গ্রাম ছেড়েছে, হুমকিও প্রাণের ভয়ে সে একজন নিরীহ মানুষ।

এ বিষয়ে ইটালী ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম আরিফ জানান, মান্নানের চার ভাইকে একঘরে করে রাখার বিষয়টি আমি এখনো শুনিনি। তবে এর সত্যতা পাওয়া গেলে বিষয়টি সুরাহা করার জন্য আমি চেষ্টা করবো।

সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুর-এ-আলম সিদ্দিকী সাংবাদিকদের  জানান, কাউকে একঘরে করে রাখার বিষয়টি আমার জানা ছিলো না। এর আগে ওই গ্রামের একটি বিষয়ে মামলা হয়েছিলো, পুলিশ আসামিদের আটক করে জেলহাজতে পাঠিয়েছে। এলাকা পরিদর্শন করে একঘরে করে রাখার সত্যতা পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ব্রেকিংনিউজ/এমএইচ

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি