পর্যটক অবতরণ ঘাট থাকলেও, নেই পাবলিক টয়লেট

মিশু দে. রাঙ্গামাটি
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ১০:৫১

পর্যটক অবতরণ ঘাট থাকলেও, নেই পাবলিক টয়লেট

রাঙ্গামাটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে পর্যটন সুবিধা সহায়ক নৌ-অবতরণ ঘাট থাকলেও তার আশপাশে নেই কোন পাবলিক টয়লেট। যার কারণে যেসব পর্যটক দূরদুরান্ত থেকে রাঙামাটিতে ঘুরতে এসে এইঘাটে পৌছায় তাদের পড়তে হয় ভোগান্তিতে।
পর্যটকদের সুবিধাত্বে রাঙ্গামাটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড নির্মান করে নৌ-অবতরণ ঘাট। ঘাটটি বর্তমানে কাপ্তাই লেকে ঘুরতে যাওয়া পর্যটকদের ব্যবহার অন্যতম প্রধান অবতরণ ঘাটে পরিণত হয়েছে। 

রাঙ্গামাটিতে আসা বেশির ভাগ পর্যটকই রাঙ্গামাটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে গাড়ি থামিয়ে কেও বা হোটেলে যায় আবার অনেকে সরাসরি বোর্ট বা লঞ্চে যায় কাপ্তাই লেকে ঘুরতে। 

কিন্তু গাড়ি থেকে নামার পর অনেকের টয়লেটের প্রয়োজন হলেও, সেই সব পর্যটকদের দিক বিদিক ছুটাছুটি করতে দেখা যায় টয়লেটের খোঁজে। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অর্থায়নে ঘাটটির পাশে নির্মিত একটি রেষ্টুরেন্ট ইজারা দেওয়া হলেও, সেখানেও ‘মালিকের অনুমতি নাই’ এই কথা বলে রেস্টুরেন্টে কাউকে টয়লেট ব্যবহার করতে দেওয়া হয় না। 
এই স্থানটিতে পর্যটকদের ব্যবহারের জন্য টয়লেট না থাকাই রাঙ্গামাটিতে ঘুরতে আসা পর্যটকদের প্রথম অবস্থাতেই ভোগান্তিতে পড়তে হয়, বিশেষ করে নারীদের।

ফরিদপুর থেকে আসা এমরান আহমেদ জানান, এই স্থানে কোন পাবলিক টয়লেট নেই। সরকারি ভাবে ঘাট নির্মাণ করা হয়েছে, সাথে একটি পাবলিক টয়লেট করলে অনেক ভালো হতো, আমাদের ভোগান্তিতে পড়তে হতো না।
 
রাজশাহী থেকে আসা পর্যটক শহীদুজ্জামান জানান,আমরা প্রাথমিক পর্যায়ে এখানে বাস থেকে নেমে পাবলিক টয়লেট অনেকক্ষণ খুজেছি, কিন্তু পাইনি। আমাদের সাথে বেশ কয়েকজন নারী ছিল তাদেরও টয়লেট ব্যবহারের প্রয়োজন ছিল, কিন্তু টয়লেট না পেয়ে পরবর্তীতে হোটেলে রুম নিয়ে সেখানে টয়লেট ব্যবহার করতে হয়।

চট্টগ্রাম ইন্ডিপেন্ডেট ইউনিভাসিটির শিক্ষার্থীদেরও একই অভিযোগ। তাদের কয়েকজন বলে, আমরা শিক্ষার্থীদের একটি টিম রাঙ্গামাটি ভ্রমণ করি। শহীদ মিনার সংলগ্ন নৌ-অবতরণ ঘাটের সামনে আমরা নেমে লঞ্চে করে কাপ্তাই লেকে ঘুরার জন্য বাস থেকে নেমে কয়েকজন শিক্ষার্থীর টয়লেট ব্যবহারের প্রয়োজন হয়ে। কিন্তু সেখানে কোন পাবলিক টয়লেট পাই না। পাশে রেস্টুরেন্টের সহযোগিতা চাইলে তারা মালিকের অজুহাতে অসহযোগীতা করে। পরবর্তীতে লঞ্চে গিয়ে টয়লেট ব্যবহার করতে হয়। বিষয়টি দুঃখ জনক। শুনেছি নিয়মিত সে ঘাটদিয়ে পর্যটকরা যাতায়াত করে। কিন্তু কেন সেখানে একটি পাবলিক টয়লেট নেই তা আমরা জানি না। তবে পর্যটকদের সুবিধাত্বে সেখানে অব্যশই একটি পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করা প্রয়োজন, আশা করছি সংশ্লিষ্টরা সে বিষয়ে নজর দিবেন।

রাঙ্গামাটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড থেকে ইজারা নেওয়া প্রতিষ্ঠান চন্দ্রিমা রেস্টুরেন্টের সত্তাধিকারী মো. সামসুর আলম জানান, আমরা বিভিন্ন সময় পর্যটকদের রেস্টুরেন্টের টয়লেটটি ব্যবহার করতে দেই। টয়লেটটি সব সময় পর্যটকদের ব্যবহার করতেও দিতে চাই, কিন্তু সঠিক ভাবে অনেক পর্যটক টয়লেটটি ব্যবহার করতে পারে না। যার কারণে অনেক পর্যটক টয়লেটটি ব্যবহারে সাচ্ছন্দ বোধও করে না। গুরুত্ব বিবেচনায় সব পর্যটক ব্যবহার করতে পারে এমন কয়েকটি টয়লেট শহীদ মিনারের আশপাশে অনেক খোলা জায়গা আছে সেখানে পৌরকর্তৃপক্ষ চাইলে পর্যটকদের সুবিধার জন্য নির্মান করে দিতে পারে। 

রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী জানান, রাঙ্গামাটি শিশুপার্কে একটি পাবলিক টয়লেট আছে, কিছুদূর পর পর পাবলিক টয়লেট তৈরি করা পরিবেশের জন্যও ক্ষতিকর। পর্যটকদের সুবিধার জন্য অবতরণ ঘাটের পাশে যে রেস্টুরেন্ট আছে সেখানে চাইলে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড পাবলিক টয়লেটের ব্যবস্থা করতে পারতো। তবে পর্যটকদের সুবিধাত্বে শিশু পার্কের মধ্যে যে পাবলিক টয়লেট আছে, সেটি আমি দ্রুত খুলে দেওয়ার ব্যবস্থা নিব।

ব্রেকিংনিউজ/এমএইচ

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি