রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানি আজ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১০ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ০৭:৫১ আপডেট: ০৮:১৫

রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানি আজ

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার করা মামলায় রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানি আজ শুরু হচ্ছে। পশ্চিম আফ্রিকার ছোট এই দেশটির মামলায় মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর)  নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে অবস্থিত আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) শুরু হবে শুনানি। 

মামলার শুনানিতে গাম্বিয়াকে নেপথ্যে থেকে তথ্য-উপাত্ত দিয়ে সহযোগিতা করবে বাংলাদেশ, কানাডা ও নেদারল্যান্ডস। বাংলাদেশের পক্ষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে এই মামলায় লড়তে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি নেদারল্যান্ডস পৌঁছেছেন। তিনি বিশেষজ্ঞ আইনজীবীদের একটি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

আইসিজের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, নেদারল্যান্ডসের পিস প্যালেসে অবস্থিত আইসিজেতে গাম্বিয়ার বক্তব্যের মধ্য দিয়ে মামলার শুনানি শুরু হবে। আত্মপক্ষ সমর্থন করে আগামীকাল ১১ ডিসেম্বর বক্তব্য উপস্থাপন করবে। এরপর ১২ ডিসেম্বর যুক্তিতর্ক হবে। প্রথমে গাম্বিয়ার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবে, পরবর্তীতে মিয়ানমার তা খন্ডনের সুযোগ পাবে। জাতিসংঘের সদস্য দেশ হিসেবে আইসিজের রায় মানতে মিয়ানমার বাধ্য। এ মামলায় গাম্বিয়াকে সহায়তা দেওয়া হবে বলে এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে কানাডা ও নেদার‌ল্যান্ডস।

মামলায় বাংলাদেশ কীভাবে সহযোগিতা করবে?

শুনানি পর্যবক্ষণে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হকের নেতৃত্বে ২০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল নেদারল্যান্ডস গেছেন। প্রতিনিধিদলে আছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল) মাসুদ বিন মোমেন, অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের হাইকমিশনার সুফিউর রহমানত, ইরানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গাউসুল আজম সরকারসহ আরও কয়েকজন কূটনীতিক ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি। এছাড়া কক্সবাজারে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের তিন জন প্রতিনিধিও নেদার‌ল্যান্ডস গেছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন গতকাল পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, মিয়ানমার যাতে মিথ্যা তথ্য দিতে না পারে, সেজন্য বাংলাদেশের পক্ষেআন্তর্জাতিক আদালতে তথ্য-প্রমাণ নিয়ে প্রতিনিধি দল শুনানিতে উপস্থিত থাকবে। গাম্বিয়া ওআইসির পক্ষ থেকে মামলা করেছে। রোহিঙ্গারা আমাদের আশ্রয়ে আছে, সেহেতু গাম্বিয়া কোনো ধরনের তথ্য চাইলে আমরা সাহায্য করবো।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আমরাও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে মিয়ানমারের জবাবদিহিতা চাই। এটা নিশ্চিত হলে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন বন্ধ হবে। রাখাইনে তাদের বসবাসের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে। তিনি বলেন, বিচার হবে এভিডেন্স বেইজড। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশে এসে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলে গেছেন। নির্যাতিত বক্তব্য ধারণ করেছেন। তাদের কাছে এভিডেন্স আছে। আমরা আশাবাদী গাম্বিয়া এ মামলায় জয় পাবে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি তল্লাশি চৌকিতে বিদ্রোহীদের হামলার পর রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। ব্যাপক হত্যাকাণ্ড, ধর্ষণ ও নির্যাতনের মুখে ৭ লাখের মতো রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলদেশে আশ্রয় নেয়। এই অভিযানে রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা চালানো হয় বলে অভিযোগ তোলে বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা। অবশেষে ওই ঘটনার দুই বছর পর গত চলতি বছর ১১ নভেম্বর অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশনের (ওআইসি) সমর্থনে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে গণহত্যার অভিযোগ দায়ের করে গাম্বিয়া।

 ব্রেকিংনিউজ/এম

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি