গণধর্ষণ কি সন্ত্রাস মোকাবেলার পথ, শিশুরা কি সন্ত্রাসী? মিয়ানমারকে গাম্বিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ০৬:২৭ আপডেট: ১০:০৯

breakingnews

বরাবরও রাখাইনে রাজ্যের পরিস্থিতির জন্য রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের দায়ী করে আসছে মিয়ানমার। আন্তর্জাতিক বিচার আদালতেও এমন দাবি করেছেন মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি। 

জবাবে মামলার বাদী দেশ গাম্বিয়া প্রশ্ন তুলেছে, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ কি করে সন্ত্রাস দমনের পথ হতে পারে? রোহিঙ্গা শিশুরা কি সন্ত্রাসী ছিলো? অথচ তাদেরকে নির্বিচারে হত্যা করা হয়েছে। গর্ভবতী নারীদের পর্যন্ত ধর্ষণ করা হয়েছে। রোহিঙ্গা নারীদের গণধর্ষণ করা হয়েছে। এগুলোকে কি সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান বলে?

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় বেলা ৩টায় নেদারল্যান্ডের হেগে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) এই বিচারের তৃতীয় দিনের শুনানি শুরু হয়।

সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ অস্বীকার করে প্রথম দিনের শুনানিতে সু চি দাবি করেন, গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলায় রাখাইনের একটি খণ্ডিত ও বিভ্রান্তিকর চিত্র হাজির করা হয়েছে। রাখাইনে আরসার মতো সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে শুদ্ধি-অভিযান পরিচালিত হয়েছে।

২০১৭ সালেই জাতিসংঘের অনুসন্ধানী দল তাদের অনুসন্ধানে জানিয়েছিল, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর সংঘবদ্ধ ধর্ষণকে জাতিগত নিধনের অস্ত্র বানিয়েছে মিয়ানমার। এরপর ২০১৮ সালে ওই অনুসন্ধানী দল পাঁচটি আলামত হাজির করে জানায়, রোহিঙ্গাদের বিতাড়নে কাঠামোবদ্ধ যৌন নিপীড়নকে ব্যবহার করেছে সে দেশের সেনাবাহিনী। একে গণহত্যার আলামত আখ্যা দিয়েছিল তারা। পরবর্তীতে আরও একটি ঘটনাকে যুক্ত করে সংস্থাটির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন দৃঢ়ভাবে জানায়, গণহত্যার উদ্দেশ্যেই সেখানে যৌন নিপীড়নকে ব্যবহার করা হয়েছে।

গাম্বিয়ার এজেন্ট আদালতকে বলেন, ‘সন্ত্রাস দমনের কথা বলে রোহিঙ্গাদের ওপর চরম নির্যাতন করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। রোহিঙ্গা শিশুরা কি সন্ত্রাসী ছিলো? অথচ তাদেরকে নির্বিচারে হত্যা করা হয়েছে। গর্ভবতী নারীদের পর্যন্ত ধর্ষণ করা হয়েছে। রোহিঙ্গা নারীদের গণধর্ষণ করা হয়েছে। এগুলোকে কি সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান বলে?’

সশস্ত্র সংগঠন আরসার হামলার কথা বলেছে মিয়ানমার। অথচ দেখা যাচ্ছে যে মিয়ানমার নিরাপত্তা চৌকিতে আরসার হামলার দুই সপ্তাহ আগে উত্তর রাখাইনে সেনা মোতায়েন করা হয়েছিলো বলে আদালতকে জানায় গাম্বিয়া।

গাম্বিয়ার এজেন্ট বলেন, ‘মিয়ানমার সেনারা প্রত্যেককেই নির্যাতন করেছে। তারা গর্ভবতী নারী ও ছোট শিশুদেরকেও নির্যাতন করেছে। রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হয়নি। রাষ্ট্রীয়ভাবে তাদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ানো হয়েছে। রোহিঙ্গাদের বাড়ি-ঘর ধ্বংস করা হয়েছে। সেখানে অন্য জাতি-গোষ্ঠীর লোকদের জন্যে ঘর বানানো হয়েছে। রোহিঙ্গাদের জমি কেড়ে নিয়ে অন্যদের দেওয়া হয়েছে।’

পুনর্বাসন প্রক্রিয়া একটি প্রতারণা বলেও উল্লেখ্য করে গাম্বিয়া। দেশটির বলে, ‘স্বেচ্ছা প্রত্যাবাসনের পরিবেশ এখনো সৃষ্টি হয়নি সে কথা ইউএনএইচসিআরের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী ‘রোহিঙ্গা’ শব্দটি পর্যন্ত ব্যবহার করে না। পুনর্বাসন প্রক্রিয়া একটি প্রতারণা। মিয়ানমার কাউন্সিল স্বীকার করেছে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া কার্যকর নয়।’

এর আগে মঙ্গলবার বিচার প্রক্রিয়ার প্রথম দিনে বাদীপক্ষ গাম্বিয়ার অভিযোগ শোনা হয়। দ্বিতীয় দিনে মিয়ানমারের হয়ে কথা বলেন সু চি। শুনানির শেষ দিনে (১২ ডিসেম্বর) বিকাল ৩টায় দেড় ঘণ্টা বলার সুযোগ পায় গাম্বিয়া। বিরতির পর বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৯টা থেকে দেড় ঘণ্টা নিজেদের যুক্তি তুলে ধরবে মিয়ানমার।

ব্রেকিংনিউজ/ এসএ

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
 Monetized by Galaxysoft
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি