লিবিয়াকে ঘিরে তুরস্ক-ফ্রান্সের বিবাদ, বিপদে ন্যাটো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
৭ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ০৭:১০ আপডেট: ০৭:১৪

লিবিয়াকে ঘিরে তুরস্ক-ফ্রান্সের বিবাদ, বিপদে ন্যাটো

লিবিয়া নিয়ে তুরস্কের সাথে বড়ধরনের বিবাদে জড়িয়ে পড়েছে ফ্রান্স। এরপরই তারা নেটোর একটি নিরাপত্তা তৎপরতায় তাদের ভূমিকা সাময়িকভাবে স্থগিত করেছে। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, লিবিয়ার বিরুদ্ধে জারি করা অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা তুরস্ক লংঘন করেছে। এ কারণে অপারেশন সি গার্ডিয়ান নামে সমুদ্রে নেটোর নিরাপত্তা অভিযানে ফ্রান্স এখন অংশ নেবে না। লিবিয়ার গৃহযুদ্ধে জড়িতদের পক্ষ সমর্থনের ব্যাপারে নেটো জোটভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে মতভেদ রয়েছে।

তবে এর কয়েক সপ্তাহ আগেই ফ্রান্স অভিযোগ করে, ভূমধ্যসাগরে ফরাসী রণতরীকে লক্ষ্য করে অস্ত্র তাক করেছে তুরস্কের জাহাজ। তবে অভিযোগটি জোরালোভাবে অস্বীকার করেছে তুরস্ক।

২০১১ সালে নেটো সমর্থিত বাহিনী কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফিকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর থেকে তেলসমৃদ্ধ দেশটিতে সহিংসতা বিরাজ করছে। এরই মধ্যে আফ্রিকা থেকে ইউরোপে অভিবাসন প্রত্যাশীদের প্রধান একটা ট্রানজিট দেশ হয়ে উঠেছে লিবিয়া।

বর্তমানে লিবিয়ায় জাতিসঙ্ঘের সমর্থনপুষ্ট সরকার বিদ্রোহী নেতা জেনারেল খালিফা হাফতারের বাহিনীর সাথে লড়ছে। লিবিয়ার পূর্ব ও দক্ষিণাঞ্চলের বড় অংশ এই মুহূর্তে খালিফা হাফতারের বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে।

ফ্রান্স কেন ভূমধ্যসাগরে নেটোর অভিযান থেকে সরে যাচ্ছে, এমন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। লিবিয়ার সঙ্কট, উত্তর সিরিয়ায় তুরস্কের ভূমিকা এবং পূর্ব ভূমধ্যসাগরে তেল উত্তোলন নিয়ে সাম্প্রতিক কয়েক মাসে ফ্রান্সের সাথে তুরস্কের সম্পর্ক ক্রমশই তিক্ত হয়ে উঠেছে।

কিন্তু তাদের সম্পর্কে বড়ধরনের চিড় ধরে ১০ জুন, যখন ফরাসী রণতরী কুরবে লিবিয়ার উপকূলে তানজানিয়ার পতাকাবাহী মালবাহী জাহাজ সারকিন পরিদর্শন করতে যায়। কুরবের লক্ষ্য ছিল দেখা যে, সারকিন অস্ত্র চোরাচালান করছে কিনা।

নেটোর ‘অপারেশন সি গার্ডিয়ান’ তৎপরতার উদ্দেশ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে নৌচলাচলের স্বাধীনতার ওপর নজর রাখা এবং নৌচলাচলকে সন্ত্রাসী হামলার হুমকি থেকে রক্ষা করা। যে ঘটনা নিয়ে বিতণ্ডা সে সময় ফরাসী জাহাজ কুরবে নেটোর এই তৎপরতায় অংশ নিচ্ছিল। কিন্তু এর পর আসল ঘটনা কী ঘটেছিল, তা নিয়েই দুই দেশের মধ্যে বেঁধেছে এই বিতণ্ডা।

ফ্রান্সের প্রতিরক্ষা বাহিনী বলছে, তুরস্কের জাহাজ এ সময় সারকিন জাহাজটিকে পাহারা দিয়ে নিয়ে যাচ্ছিল। অন্যদিকে তুরস্কের বক্তব্য ছিল, ওই জাহাজে চিকিৎসা সরবরাহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কিন্তু ওই সময় তুরস্কের জাহাজ তাদের ফ্রিগেট রণতরী কুরবেকে লক্ষ্য করে আগ্রাসী আচরণ করে। এমনকি তিন বার তুরস্ক কুরবেকে লক্ষ্য করে তাদের অস্ত্র তাক করে বলে ফ্রান্স অভিযোগ করে।

ফ্রান্সের অভিযোগ অস্বীকার করে তুরস্ক বলেছে, তাদের ওই যোগাযোগ বন্ধুত্বপূর্ণ ছিল। ফ্রান্স নেটোর প্রতি ওই ঘটনার তদন্ত করারও আহ্বান জানিয়েছে। দুই দেশই সাম্প্রতিক কয়েক সপ্তাহে পরস্পরের বিরুদ্ধে কটূক্তি করেছে। 

সোমবার ফরাসী প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ তুরস্কের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, ‘তুরস্ক নেটোর একটি সদস্য দেশ হওয়া সত্ত্বেও লিবিয়ার সংঘাতে দেশটি ঐতিহাসিক এবং অপরাধমূলক ভূমিকা নিয়েছে’।

এরপর মঙ্গলবার তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসগ্লু বলেন, উত্তর আফ্রিকার এই দেশটিতে ফ্রান্স একটা ‘বিধ্বংসী’ ভূমিকা পালন করছে। তিনি অভিযোগ করেন, ফ্রান্স ‘লিবিয়ায় রাশিয়ার উপস্থিতি আরো বাড়ানোর’ চেষ্টা করছে। বৃহস্পতিবার তিনি আরো বলেন, কুরবে রণতরীটি নিয়ে এমন অভিযোগ তোলার জন্য ফ্রান্সের ক্ষমা চাওয়া উচিত।

খবরে জানা যাচ্ছে, নেটোর ‘অপারেশন সি গার্ডিয়ান’ তৎপরতা থেকে ফ্রান্স নিজেদের প্রত্যাহার করে নেবার পর ফ্রান্সের একজন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা বলেছেন, ‘নেটোর মিত্র দেশ যেখানে জোটের দেয়া নিষেধাজ্ঞার প্রতি সম্মান দেখায় না, সেখানে এই জোটের সাথে আমাদের রণজাহাজ নিয়োজিত রাখার কোনো মানে হয় না’।

বিবিসির প্রতিরক্ষা সংবাদদাতা জনাথন মার্কাসের ভাষ্য, তুরস্ক দ্রুতই নেটোর জন্য চলার পথে ‘জুতোয় পাথর’ হয়ে উঠেছে। এই মিত্র জোটে তুরস্কের অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন ইস্যুতে যেসব প্রশ্ন উঠেছে, তার মধ্যে সর্বসাম্প্রতিকটি ঘটল ফ্রান্সকে ঘিরে। লিবিয়া নিয়ে নেটোর অবস্থানকে ঘিরে এই উত্তেজনার আগে সিরিয়ার সঙ্কটে মধ্যস্থতা নিয়েও তুরস্ক আর নেটোর প্রধান শরিক দেশগুলোর মধ্যে একইধরনের মতবিরোধ দেখা গেছে। এই মতভেদ প্রকট হয় যখন বাল্টিক প্রতিরক্ষা পরিকল্পনা অনুমোদনের ব্যাপারে তুরস্ক এমনকি তাদের মতদান ঝুলিয়ে রাখে।

এরপর রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ বিমান প্রতিরক্ষা ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েও জোটের সাথে তুরস্কের মতভেদ হয়। এর ওপরে রয়েছে তাদের দীর্ঘদিনের প্রতিপক্ষ দেশ ও নেটোর সদস্য গ্রিসকে নিয়ে ভূমধ্যসাগর এলাকায় আরো বিস্তৃত পরিসরে উত্তেজনার বিষয়টি।

জোটের কার্যপরিধির মধ্যে যেটা গ্রহণযোগ্য তুরস্ক সেই সীমা বারবার ছাড়িয়ে যাবার চেষ্টা করেছে। তবে এই মুহূর্তে কোভিড-১৯ মহামারির দিকে সব দেশের দৃষ্টি অনেকটাই সরে যাবার ফলে এবং নেটোর ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রতিকূল ও দ্বিমুখী একটা দৃষ্টিভঙ্গির কারণেও এই উত্তেজনা হয়তো প্রশমিত হবে বলেই আশা করা যেতে পারে।

লিবিয়ার গৃহযুদ্ধে জড়িত দুই পক্ষের পেছনেই আন্তর্জাতিক সমর্থন আছে। তুরস্ক, ইতালি এবং কাতার ত্রিপলিতে এই মুহূর্তে শাসনক্ষমতায় আছে যে জিএনএ সরকার (গভর্নমেন্ট অফ ন্যাশানাল অ্যাকর্ড) তাদের মদত দিচ্ছে। 

অন্যদিকে রাশিয়া, মিসর ও সংযুক্ত আরব আমীরাত সমর্থন করে জেনারেল হাফতারকে। ধারণা করা হয়, ফ্রান্সও জেনারেল হাফতারের সমর্থক, যদিও ফরাসী সরকার বারবার এ কথা অস্বীকার করেছে।

জাতিসঙ্ঘের অস্ত্র নিষেধাজ্ঞায় লিবিয়াতে কোনো সৈন্য মোতায়েন করা যাবে না এবং অস্ত্র পাঠানো নিষিদ্ধ। কিন্তু তা খুবই কম কার্যকর হয়েছে। কিন্তু তুরস্ক ২০১৯ সালে জিএনএ সরকারের সাথে একটি সামরিক চুক্তি করে এবং জানুয়ারি মাসে দেশটিতে সৈন্য মোতায়েন করে।

গত মাসে জিএনএ বাহিনী অবশেষে ত্রিপলির পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ ফিরে পায়, যার পেছনে ছিল মূলত তুরস্কের সহযোগিতা। জেনারেল হাফতার শহরের উপকণ্ঠ থেকে তার সেনাদের প্রত্যাহার করে নেয় বলে খবর পাওয়া যায়।

মে মাসে ফাঁস হওয়া জাতিসঙ্ঘের এক রিপোর্টে বলা হয়, ইয়েভগেনি প্রিগোঝিন পরিচালিত রাশিয়ার ওয়াগনার গ্রুপ থেকে কয়েকশ’ সৈন্য লিবিয়ায় জেনারেল হাফতারের সমর্থনে কাজ করছে। তাতে বলা হয়, ইয়েভগেনি প্রিগোঝিন প্রেসিডেন্ট পুতিনের একজন ঘনিষ্ঠ সহযোগী।

আবার এমন খবরও পাওয়া যাচ্ছে যে, এই ওয়াগনার গ্রুপের ভাড়াটে সৈন্যরা লিবিয়া ছেড়ে চলে যাচ্ছে। যদিও এই খবর নিশ্চিত করা যায়নি। খবর বিবিসি।

ব্রেকিংনিউজ/এম

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি