সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলা: ১০ আসামির ফাঁসি, খালাস ২

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২০ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার
প্রকাশিত: ১১:৫৮ আপডেট: ১২:৫৫

সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলা: ১০ আসামির ফাঁসি, খালাস ২

১৯ বছর আগে রাজধানীর পল্টন ময়দানে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) মহাসমাবেশে বোমলা হামলার মামলায় ১০ আসামির ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় দুজনকে খালাস দেয়া হয়েছে। 

সোমবার (২০ জানুয়ারি) ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রবিউল আলম এ রায় ঘোষণা করেন।  

এর আগে মামলার ৪ আসামিকে সকালে কারাগার থেকে আদালতে আনা হয়। রায় ঘিরে সকাল থেকেই আদালতপাড়ায় নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়।

২০০১ সালের ২০ জানুয়ারি পল্টন ময়দানে সিপিবি’র লাখো মানুষের মহাসমাবেশে বোমা হামলা চালায় প্রতিক্রিয়াশীল ঘাতক চক্র।

হামলায় ঘটনাস্থলেই নিহতরা হলেন- খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা উপজেলা সিপিবির নেতা হিমাংশু মণ্ডল, খুলনা জেলার রূপসা উপজেলার সিপিবি নেতা ও দাদা ম্যাচ ফ্যাক্টরির শ্রমিক নেতা আব্দুল মজিদ, ঢাকার ডেমরা থানার লতিফ বাওয়ানি জুটমিলের শ্রমিক নেতা আবুল হাসেম ও মাদারীপুরের মুক্তার হোসেন। আর খুলনার বিএল কলেজের ছাত্র ইউনিয়ন নেতা বিপ্রদাস রায় আহত হয়ে ঢাকা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে ওই বছরেই ২ ফেব্রুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন। বোমা হামলায় শতাধিক নেতাকর্মী আহত হন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহমেদ জানান, মামলাটিতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিলের পরও দ্বিতীয় দফায় অভিযোগপত্র দেয়া হয়। মামলার ১৩ আসামির মধ্যে একজনের কথিত একটি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রয়েছে। আর কোনও সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই। একজনের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে সব আসামিকে দণ্ড দেয়ার কোনও সুযোগ নেই।

বহুল আলোচিত এ মামলায় ১৩ জন আসামির মধ্যে আছেন- মুফতি আব্দুল হান্নান, মুফতি মাঈন উদ্দিন শেখ, আরিফ হাসান সুমন, মাওলানা সাব্বির আহমেদ, শওকত ওসমান ওরফে শেখ ফরিদ, মো. মশিউর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম বদর, মহিবুল মুত্তাকিন, আমিনুল মুরসালিন, মুফতি আব্দুল হাই, মুফতি শফিকুর রহমান, রফিকুল ইসলাম মিরাজ ও নুর ইসলাম। 

এর মধ্যে ব্রিটিশ হাইকমিশনার হত্যা মামলায় আব্দুল হান্নানের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় এ মামলা থেকে তাকে অব্যাহতি দেয় আদালত। পলাতক আছেন ৭ জন আর কারাগারে ৫ জন। কারাগারে থাকা পাঁচজনই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। 

ভয়াবহ এ হামলার ঘটনায় সিপিবির তৎকালীন সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান খান বাদী হয়ে মতিঝিল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। 

চারদলীয় জোর সরকারের আমলে ২০০৩ সালের ডিসেম্বরে আসামিদের বিরুদ্ধে নির্ভরযোগ্য তথ্য-প্রমাণাদি পাওয়া যায়নি মর্মে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল হলে থেমে যায় মামলার তদন্ত। 

২০০৪ সালে ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা ও ২০০৫ সালের আগস্টে দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে পল্টন হামলায় সম্পৃক্ততার প্রমাণ আসে। ২০০৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর পুলিশ মামলাটির পুনঃতদন্তের আবেদন করলে ২৯ ডিসেম্বর সেই আবেদন মঞ্জুর করেন আদালত। 

২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর ১৩ আসামির বিরুদ্ধে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে আদালতে পৃথক দুটি চার্জশিট দাখিল করেন গোয়েন্দা পুলিশের ইন্সপেক্টর মৃণাল কান্তি সাহা। সেইসঙ্গে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় ৩০ জনকে অব্যাহতি দেয়া হয়। ২০১৪ সালের ২১ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন হলে পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় মামলায় মোট ১০৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ৩৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি