‘বলাৎকার’কে ধর্ষণ গণ্য করে শাস্তি ফাঁসি চেয়ে আইনি নোটিশ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ০৭:০১ আপডেট: ০৭:০৩

‘বলাৎকার’কে ধর্ষণ গণ্য করে শাস্তি ফাঁসি চেয়ে আইনি নোটিশ

বলাৎকারকে ধর্ষণ হিসেবে গণ্য করে ধর্ষণের মতোই সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারকে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে ছাত্র বলাৎকার (ধর্ষণ) ও যৌন নির্যাতনের ঘটনার প্রেক্ষিতে দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারা, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ ধারায় প্রয়োজনীয় সংশোধন বলাৎকারকে ধর্ষণ হিসেবে গণ্য করতে এই নোটিশ পাঠায়।

একইসঙ্গে সাধারণ ধারার মাদ্রাসা (আলিয়া) এবং কওমি মাদ্রাসাগুলোতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক নারী শিক্ষক নিয়োগ, বিশেষত শিশুদেরকে নারী শিক্ষক দিয়ে পাঠদানের ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি মাদ্রাসা প্রশাসনের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে ব্যবস্থা গ্রহণ, কওমি মাদ্রাসা নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় বিধিবিধান প্রণয়নের কথা নোটিশে বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) ইমেইল ও ডাকযোগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানকে ল’ অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশনের পক্ষে আইনি নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের দুই আইনজীবী মোহাম্মদ হুমায়ন কবির পল্লব এবং মোহাম্মদ কাওছার।

নোটিশ পাওয়ার পাঁচ দিনের মধ্যে এ বিষয়ে পদক্ষেপ না নিলে ল' অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আইনজীবী মোহাম্মদ হুমায়ন কবির পল্লব নোটিশের বিষয়টি ব্রেকিংনিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

নোটিশে বলা হয়, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন মাদ্রাসা শিক্ষক কর্তৃক ক্রমবর্ধমান ছাত্র ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের ঘটনার প্রেক্ষাপটে দণ্ড বিধির ৩৭৫ ধারা, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ ধারায় প্রয়োজনীয় পরিবর্তন করে পুরুষ শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রদের বলাৎকারকে ধর্ষণ হিসেবে গণ্য করে এ ধরনের অপরাধে ধর্ষণের মতোই সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড প্রয়োগে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আর্জি জানিয়ে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের দুই আইনজীবী।

নোটিশে বলা হয়, দেশে দুই ধরণের মাদ্রাসা (সাধারণ ধারার এবং কওমি) সংখ্যা প্রায় লক্ষাধিক। এসব মাদ্রাসায় প্রায় কোটির কাছাকাছি শিক্ষার্থী রয়েছে। এসব মাদ্রাসায় কোমলমতি শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করে পুরুষ শিক্ষকদের অধীনে। মাদ্রাসায় প্রশাসনিক স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার অভাবের কারণে কোমলমতি ছাত্ররা ধর্ষণসহ বিভিন্ন যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে শিক্ষক দ্বারা।

এসব যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের ফলে অনেক ছাত্র মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ছে। সম্প্রতি এসব ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে। আবার দেশের প্রচলিত আইনে পুরুষের সঙ্গে পুরুষের জোরপূর্বক যৌনসঙ্গমকে ধর্ষণ হিসাবে বিবেচনা করা হয় না। ফলে এ ধরনের অপকর্মের শাস্তি অনেক কম থাকায় মাদ্রাসার শিক্ষকরা সুযোগটি কাজে লাগাচ্ছে।

আইনে নোটিশে দণ্ড বিধির ৩৭৫ ধারায়, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ ধারায় প্রয়োজনীয় পরিবর্তন আনয়ন করে পুরুষ কর্তৃক ছাত্রদের বলাৎকারকে ধর্ষণ হিসেবে গণ্য করে এ ধরণের অপরাধে ধর্ষণের মতোই সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড প্রয়োগে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানানো হয়।

নোটিশ প্রদানকারী আইনজীবী মোহাম্মদ হুমায়ন কবির পল্লব বলেন, ‘মাদ্রাসার অধিকাংশ শিক্ষার্থী এতিম এবং সমাজের বঞ্চিত শিশু-কিশোর। এ কারণে তাদেরকে নির্যাতনের কোনও ঘটনা ঘটলেও আইনগত যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ বা সামাজিকভাবে এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে তাদের পাশে দাঁড়ানোর মত কাউকে দেখা যায় না। ফলে অপরাধীরা এ ধরণের জঘন্য অপরাধ করেও সহজেই পার পেয়ে যাচ্ছে। এ পরিস্থিতি কোনও সভ্য সমাজে কোনও ভাবেই কাম্য নয়। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন।’

ব্রেকিংনিউজ/কেআই/এসআই

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি