ঢাকা, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, শনিবার
KSRM

উত্তরা গণভবনে সংগ্রহশালা ও চিড়িয়াখানা উদ্বোধন

নাটোর প্রতিনিধি
৯ মার্চ ২০১৮, শুক্রবার
প্রকাশিত: 5:45 আপডেট: 12:00
ছবি: ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি

রাজার আমলের ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিসপত্র নিয়ে সাজানো নাটোরের উত্তরা গণভবনে সংগ্রহশালার উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার (৯ মার্চ) দুপুরে সংগ্রহশালার উদ্বোধন করেন মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। 

এ সময় রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নুর-উর রহমান, জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন, নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরি জলি, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রাজ্জাকুল ইসলামসহ সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

তখন সংগ্রহশালার বিভিন্ন কক্ষ পরিদর্শন করেন মন্ত্রী পরিষদ সচিব ও অতিথিরা। এ ছাড়া একটি মিনি চিড়িয়াখানারও উদ্বোধন করা হয়।


উত্তরা গণভবনের পুরাতন ট্রেজারি ভবনে স্থাপিত সংগ্রহশালায় বিভিন্ন রাজার আমলের অন্তত শতাধিক জিনিসপত্র স্থান পেয়েছে। এর আগে মন্ত্রীপরিষদ সচিব দর্শনার্থীদের জন্য উত্তরা গণভবনের গ্রান্ডমাদার হাউস, গণভবনের হরিন চুড়া এবং আম্রকাননসহ বিভিন্ন কাজের উদ্বোধন করেন। এতে করে একজন দর্শনার্থী আজ থেকে উত্তরা গণভবনের ৮০ শতাংশ এলাকা ঘুরে দেখতে পারবেন। পরে গণভবনের মূল প্যালেসে গণভবন রক্ষাবেক্ষন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, ‘উত্তরা গণভবনের প্রাচীন স্থাপত্যের সাথে সামঞ্জস্য বিধান করে এই প্রাঙ্গণে এবং এর বাইরের অংশে পর্যটন উপযোগী উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে। এই লক্ষ্যে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকসহ সকল কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’

এর আগে মাল্টি মিডিয়ার মাধ্যমে গণভবন প্রাঙ্গণে লেকে বোটিং, লেকের চারপাশে ওয়াকিং পাথ ও উপরে ফুটওভার ব্রিজ এবং গণভবনের প্রবেশ দ্বার এর সন্মুখভাগে লেকসহ শিশু পার্ক, ৪২ কক্ষের গেস্ট হাউজ, শপিং কমপ্লেক্স, সিনেপ্লেক্স, কনফারেন্স রুমসহ পর্যটন আকর্ষণীয় উন্নয়ন পরিকল্পনা উপস্থাপন করা হয়- যার বাস্তবায়ন দ্রুত শুরু করা হবে।

রাজধানীর বাহিরে নাটোরের এই উত্তরা গণভবন সর্বপ্রথম ২০০৮ সালে উন্মুক্ত করা হয়। এরপর ২০১২ সালে অক্টোবর মাসে টিকিটের বিনিময়ে উত্তরা গণভবন দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। উন্মুক্ত করা হলেও পুরো গণভবন পরিদর্শন করতে পারতো না দর্শনার্থীরা। কিন্তু এখন উদ্বোধনের পর থেকে ৮০ ভাগ এলাকা ঘুরে দেখতে পারবেন।


উদ্বোধনকৃত উত্তরা গণভবনের সংগ্রহশালায় দিঘাপতিয়া রাজ পরিবারের সদস্যদের ব্যবহার্য আসবাবপত্র, পোষাক, তৈজসপত্র, বই, কাব্যগ্রন্থের পান্ডুলিপি, ডায়েরিসহ শতাধিক দ্রব্যাদি প্রদর্শিত হচ্ছে। প্রায় পরিত্যক্ত রাণীঘাট চত্বরের হরিণচূড়া এলাকায় হরিণ, ময়ূর, বানর ও টিয়া পাখির সমন্বয়ে গড়ে তোলা হয়েছে মিনি চিড়িয়াখানা।

এই চত্বরে ১৯৭২ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর রোপন করা একটি হৈমন্তী গাছ সনাক্ত করে শ্বেত পাথরে গাছের তলা বাঁধাই করে নামফলক স্থাপন করা হয়েছে। ওই সময় বঙ্গবন্ধু তৎকালীন গভর্নর হাউজকে উত্তরা গণভবন হিসেবে ঘোষণা করেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এই চত্বরে একটি জয়তুন গাছের চারা রোপন করেন। 

জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন জানান, নাটোরকে পর্যটন শহর হিসেবে গড়ে তুলতে গণভবনকে আকর্ষণীয় করে উপস্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমান অবস্থায় দর্শনার্থীরা গণভবনের ৮০ শতাংশ এলাকা পরিদর্শন করতে পারবেন- যা এর আগে ছিল মাত্র ২০ শতাংশ।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম নাটোর সার্কিট হাউসে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর এ ম্যুরাল উন্মোচন করেন। পরে তিনি দিঘাপতিয়া বালিকা শিশুসদনে যান এবং সেখানে শিশু সদনের বালিকাদের জন্য নব নির্মিত ভবনের উদ্বোধন করেন। 

জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, ‘যাতে করে দিঘাপতিয়া বালিকা শিশুসদনটি সরকারিকরণ করা যায় তার ব্যবস্থা করতে।’

ব্রেকিংনিউজ/ এমএস

প্রকাশক ও সম্পাদক: মো: মাইনুল ইসলাম
শারাকা ম্যাক, ২এইচ-প্রথম তলা
৩/১-৩/২ বিজয়নগর, ঢাকা- ১০০০
৯৩৪৮৭৭৪-৫ ৮৩৯১৫২৪
news@breakingnews.com.bd
নিউজরুম হটলাইন:-
০১৬৭৮ ০৪০২৩৮
০২ ৮৩৯১৫২৪
bnbdcountry@gmail.com
bnbdnews.reporter@gmail.com
Copyright © 2018 All rights reserved