কে এই ডা. সাবরিনা?

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার
প্রকাশিত: ০৯:৩৯ আপডেট: ০৪:১৬

কে এই ডা. সাবরিনা?

ডা. সাবরিনা আরিফ। নামটি এখন ‘টক অব দ্য কান্ট্রি’। তিনি জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাালের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের রেজিস্ট্রার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। টেলিভিশন টকশো কিংবা স্বাস্থ্যবিষয়ক আলোচনার নিয়মিত মুখ সাবরিনা নানা সময়ে দিতেন সুস্থ থাকার নানা ফর্মুলা। চিকিৎসক মহলে বেশ প্রভাবও ছিল তার।

সৈয়দ মোশাররফ হুসাইন নামে এক সাবেক আমলার মেয়ে সাবরিনা পড়ালেখা করেছেন সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে। ২৭তম বিসিএসে তিনি সরকারি চাকরিতে যোগ দেন। পুরো নাম ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইন। আরিফ চৌধুরীকে বিয়ের পর নাম পাল্টে হয়ে যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী।

ডা. সাবরিনা জোবেদা খাতুন স্বাস্থ্যসেবা (জেকেজি) প্রজেক্টের চেয়ারম্যান। ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরীর চতুর্থ স্ত্রী তিনি। যদিও সাবরিনার দাবি, আরিফ চৌধুরীর সঙ্গে তার এখন কোনও সম্পর্ক নেই। তবে হৃদরোগ হাসপাতালে তার কক্ষের সামনে গিয়ে দেখা যায় স্বামীর নামযুক্ত নেমপ্লেটে লিখা ডা. সাবরিনা আরিফ। 

সূত্রে দেয়া তথ্যে জানা যায়, চিকিৎসক মহলে প্রভাবশালী ডা. সাবরিনা চিকিৎসকদের একটি প্রভাবশালী সংগঠনের দাপুটে এক নেতার জুনিয়র বান্ধবী। সেই সুবাদে স্বাস্থ্য অধিদফতর কিংবা মন্ত্রণালয়েও ছিল তার লম্বা হাত। এই প্রভাবকে কাজে লাগিয়েই করোনাকালীন সময়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করতেন তিনি।

ডা. সাবরিনার ক্ষমতাবলে জেকেজি প্রজেক্ট নামের একটি প্রতিষ্ঠান বাগিয়ে নেয় করোনার স্যাম্পল কালেকশনের সুযোগ। প্রথমে রাজধানীর তিতুমীর কলেজ মাঠে স্যাম্পল কালেকশন বুথ স্থাপনের অনুমতি নেন ডা. সাবরিনা। পরে প্রভাব খাটিয়ে ঢাকার অন্য একা ও বাইরের জেলাগুলো থেকেই নমুনা সংগ্রহ করছিল তার প্রতিষ্ঠান। 

জেকেজির মাঠকর্মীরা ঢাকা,  নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে করোনা উপসর্গ দেখা দেয়া মানুষের নমুনা সংগ্রহ করতেন। গেল এপ্রিল মাস থেকে জেকেজি করোনার নমুনা সংগ্রহ শুরু করতে গিয়ে প্রতারণা শুরু করে। করোনার নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা না করেই ইচ্ছেমতো রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগ অভিযোগ উঠে সাবরিনার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। জেকেজির কয়েকজন কর্মী গ্রেফতারের পর তারা পুলিশ ও সাংবাদিকদের জানান, রোগীদের জ্বর থাকলে করোনা পজিটিভ আর জ্বর না থাকলে নেগেটিভ রিপোর্ট দেয়া হতো।

করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে গত ২৩ জুন জেকেজিতে অভিযান চালায় তেজগাঁও থানা পুলিশ। অভিযানে প্রতারণার মূল হোতা ও জেকেজির প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরীসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করা হলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলেন ডা. সাবরিনা।

পরীক্ষা না করেই রিপোর্ট দেয়ার ঘটনা জানাজানি হলে দেশজুড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়। এ প্রতারণায় আরিফ চৌধুরীর অন্যতম সহযোগী তার চতুর্থ স্ত্রী ডা. সাবরিনাকে কেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ধরছে না- তা নিয়েও আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। সাবরিনার ছবি পোস্ট করে চলতে থাকে ট্রল। এ মুহূর্তে তার নানা আবেদনময়ী ছবি ঘুরছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। 

অবশেষে গতকাল রবিবার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় ডা. সাবরিনাকে। জিজ্ঞাসাবাদে সন্তোষজনক জবাব না পাওয়ায় গতকালই তাকে গ্রেফতার করে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগ। এরইমধ্যে পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলাও করেছে। ধরাছোঁয়ার বাইরে রেখে প্রতারণার দায় এড়াতে গত কয়েকদিন ধরেই নানা ফন্দি আটছিলেন ডা. সাবরিনা। অনেকেই ভেবেছিলেন, চিকিৎসক সংগঠনের প্রভাবশালী নেতার প্রিয় বান্ধবী হওয়ায় হয়তো সাবরিনাকে ধরা হবে না। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না। ধরা তাকে পড়তেই হলো। 

নভেল করোনা ভাইরাস মহামারিতে গোটা দেশ যখন দিশেহারা তখন করোনার নমুনা পরীক্ষা নিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে ভয়ঙ্কর অমানবিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপনে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন সাবরিনা। আরিফ চৌধুরীর দুই স্ত্রী থাকেন রাশিয়া ও লন্ডনে। আরেক স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। তবে ছাড়াছাড়ির পরও উপর মহলে দেনদরবার করে যাচ্ছেন সাবেক ওই স্ত্রী।

গতকাল ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগীয় উপকমিশনারে (ডিসি) কার্যালয়ে ডা. সাবরিনাকে ভুয়া সার্টিফিকেট দেয়াসহ নানা বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তেজগাঁও বিভাগের ডিসি মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

এদিকে তেজগাঁও থানা পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, গত এপ্রিল মাস থেকে জেকেজি থেকে প্রায় ২৭ হাজার রোগীকে করোনার টেস্টের রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে ১১ হাজার ৫৪০ জনের করোনার নমুনা আইইডিসিআর-এর মাধ্যমে সঠিক পরীক্ষা করানো হয়েছিল। বাকি ১৫ হাজার ৪৬০ জনের নমুনা পরীক্ষা না করেই প্রতিষ্ঠানটির ল্যাপটপের মাধ্যমে ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করে রোগীদের দেয়া হয়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জব্দ করা ল্যাপটপ থেকে এসবের প্রমাণও পেয়েছে।

তেজগাঁও থানা পুলিশ জানিয়েছে, জেকেজির মাঠকর্মীরা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে করোনার নমুনা সংগ্রহ করে বাংলাদেশি প্রত্যেক রোগীর কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা করে নিতো। আর বিদেশি রোগীদের কাছ থেকে নিতো ১০০ ডলার করে। 

পুলিশের অভিযোগে জানা যায়, ডা. সাবরিনা যে মোবাইল সিমটি ব্যবহার করছেন সেটি এক রোগীর নামে নিবন্ধন করা। পুলিশ বলছে, এটিও একটি বড় অপরাধ। এ বিষয়ে সাবরিনা কিছু জানতেন না বলে সাংবাদিদের জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ডা. সাবরিনার আগেও বিয়ে হয়েছিল। প্রথম সংসারে তার দুই সন্তান আছে। তবে জিকেজির প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরীকে বিয়ে করার পর তাদের কোনও সন্তান হয়নি।

গতকাল জিজ্ঞাসাবাদে আরিফ চৌধুরীর বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে ডা. সাবরিনা দাবি করেন, দুই মাস আগে তাদের তালাক হয়ে গেছে। এখন তাদের মধ্যে কোনও সম্পর্ক নেই। সাবরিনার ঘনিষ্ঠজন সূত্র জানিয়েছে, রাজধানীর মোহাম্মদপুরে রনি নামে সাবরিনার এক ব্যবসায়ী বন্ধু থাকেন। মাঝেমধ্যেই নিজে গাড়ি চালিয়ে রনির বাসায় যেতেন ডা. সাবরিনা।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি