খালেদা জিয়ার জামিন ঠেকাতেই ব্যস্ত সরকার: জোনায়েদ সাকি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ১০:১৫ আপডেট: ১০:১৮

খালেদা জিয়ার জামিন ঠেকাতেই ব্যস্ত সরকার: জোনায়েদ সাকি

শ্রমিকরা খেতে পেয়ে অনশন করেন। শ্রমিকের দিকে তাকানোর সময় থাকে না। কিন্তু খালেদা জিয়ার জামিন ঠেকানো নিয়ে ব্যস্ত সরকার বলে মন্তব্য করেছেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর)  জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনে পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি পরিশোধ এবং কেরাণীগঞ্জে আগুনে পুড়ে নিহতদের ক্ষতিপূরণ ও দোষীদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে গণসংহতি আন্দোলন।

মানববন্ধনে জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘খুলনা-পাবনায় পাটকল শ্রমিকরা আন্দোলন করছে। অসুস্থ হয়েও তিন দিন ধরে বকেয়া বেতন আদায়ের দাবিতে আন্দোলন করছে। কারণ তাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। আমরা দেখছি এ নিয়ে সরকারের কোন মাথা ব্যাথা নেই। ১৯৭১ সালের আগে এই পাটশিল্প প্রতিষ্ঠান শ্রমিকরাই পূর্ব পাকিস্তানের রাজপথ কাঁপিয়ে দিয়েছিল। স্বাধীনতার পরে পাটকলগুলো রাষ্ট্রীয়করণ করা হয়েছে। রাষ্ট্রীয়করণের কারণেই পাটশিল্প ধ্বংস হয়ে গেছে।’

শ্রমিকদের দাবির কথা উল্লেখ করে জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘আজকের শ্রমিকরা কি চাচ্ছেন। ২০১৫ সালে তাদের জন্য মজুরি কমিশন ঘোষণা করা হয়েছে। এখন ২০১৯ সাল। ২০১৯ সালেও পাটকল শ্রমিকদের মজুরি কমিশন সরকার বাস্তবায়ন করেনি। মজুরি কাঠামোতে বেতন দেয়া হচ্ছে। সেই বেতনও বকেয়া। শ্রমিকদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে এ কারণে আন্দোলন করছে। শ্রমিকদের দিকে তাকানোর সময় এই সরকারের নেই। সরকার ব্যস্ত খালেদা জিয়ার জামিন ঠেকানো নিয়ে। এই হচ্ছে বাংলাদেশের আজকের বাস্তবতা।’

সরকারের উদ্দেশ্যে সাকি বলেন, ‘উন্নয়নের কথা বলেন,  শ্রমিকরা খেতে পায় না অনশন করে। শ্রমিকের দিকে তাকানোর সময় থাকেনা। এই সরকার বাহুবল আর পেশিশক্তি দিয়ে জনগণের উপর স্টীম রোলার চালাচ্ছে। পুলিশ বাহিনীকে দলীয় বাহিনী হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।’

পুরান ঢাকার প্লাস্টিক কারখানার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘দুই দুটি কারখানায় আগুন লাগল। অনেক মানুষ জীবন্ত পুড়ে মারা গেল। আমরা দেখলাম। এই সরকারের কি কোনো মাথাব্যথা আছে ? একের পর এক কারখানায় আগুন লেগেছে আমরা দেখেছি। তারপরও সরকারের কোন মাথা ব্যথা ছিল না।’

‘লালবাগের ছোটখাটো শিল্প-কারখানায় যারা অনুমোদন ছাড়া আইন-কানুনের তোয়াক্কা না করে, পরিবেশের তোয়াক্কা না করে, শ্রমিকদের নিরাপত্তার রক্ষা না করে আজকে তারা কল-কারখানা চালাচ্ছে। এইসব কল-কারখানা বন্ধে সরকার কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করছে না।’

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক বলেন, ‘কেরানীগঞ্জের প্লাস্টিক কারখানার কোনও অনুমোদন ছিল না। এলাকার এমপি বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ সাহেব পরিদর্শনে গেছেন। তিনি বলেছেন এই কারখানার কোনও অনুমোদন নেই। একজন মন্ত্রী পরিদর্শন করে বলে দিবেন অনুমোদন ছিল না। আপনি এলাকার সংসদ সদস্য কিভাবে আপনার নাকের ডগায় এই কারখানার চলে? জবাব আপনাকে দিতে হবে। গায়ের জোরে ক্ষমতায় আছেন বলেই আপনার কাছে কোন জবাব নেই। দেশে যে গণতন্ত্রের জায়গা আসবে। মানুষ তখন রুখে দাঁড়াবে। আপনাদের গায়ের জোর তখন টিকবে না।’

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য ফিরোজ আহমেদ, তসলিমা আখতার, সংঘটনটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য বাবু ভূঁইয়া, মনির উদ্দিন পাপ্পু, জুলহাস নাইন, প্রমুখ।

ব্রে‌কিং‌নিউজ/ এএইচএস/ এসএ 

bnbd-ads
breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি