ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ও অসাধারণ কিছু মসজিদ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২২ মে ২০২০, শুক্রবার
প্রকাশিত: ০৪:০৬ আপডেট: ০৪:৩৭

ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ও অসাধারণ কিছু মসজিদ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদ

মসজিদের নগরী ঢাকা। এই শহেরর মতো এত মসজিদ বাংলাদেশের আর কোথাও নেই। এমনকি বাইরের দেশগুলোতেও এক এলাকায় এত এত মসজিদ দেখা যায়নি। সত্যিকার অর্থেই যদি মসজিদের নগরী দেখতে চান, তাহলে আপনাকে যেতে হবে পুরান ঢাকায়। কিছুটা দূর হাঁটতে না হাঁটতেই দেখতে পাবেন একের পর এক মসজিদ। পুরান ঢাকায় যখন একসাথে সব মসজিদ আজান দেয়া শুরু করে, আপনি দ্বিধায় পরে যাবেন যে, কোনটা কোন মসজিদের আজান!

বাংলাদেশে ২০১৬ সালের এক জরিপে দেখা যায়, রাজধানী ঢাকায় বড় বড় উল্লেখযোগ্য মসজিদের সংখ্যা প্রায় ৬ হাজারেরও বেশি। এছাড়াও আরো অগণিত ছোটখাট মসজিদ তো আছেই। সব মিলিয়ে পুরো বাংলাদেশে মসজিদের সংখ্যা প্রায় আড়াই লক্ষেরও বেশি। আজ ঢাকায় অবস্থিত কিছু ঐতিহ্যবাহী মসজিদের বর্ণনা ব্রেকিংনিউজের মাহে রমজানের মসজিদ পরিচিতিতে তুলে ধরা হলো। 

বিনত বিবির মসজিদ​



ঢাকার সবচেয়ে পুরাতন মসজিদ হিসেবে পরিচিত এই বিনত বিবির মসজিদ! মসজিদটির নাম এর নির্মাতা বিনত বিবির নাম অনুসারে রাখা হয়। পুরান ঢাকার নারিন্দায় এই মসজিদের অবস্থান। ১৪৫৭ সালে মারহামাতের মেয়ে মুসাম্মাত বখত বিনত বিবি এটি নির্মাণ করেন। 

প্রায় ৬০০ বছরের পুরাতন এই মসজিদ। তখনকার সময় বিভিন্ন দেশের মুসলিমরা যখন এই বাংলায় ব্যবসা করতে আসতেন, তখন তারা এই মসজিদে নামাজ পড়তেন। কারণ নারিন্দায় ছিলো বুড়িগঙ্গা নদীর শাখা। মসজিদের পাশেই এর নির্মাতা বিনত বিবিকে শায়িত করা হয়েছে। প্রথমদিকে মসজিদটি দুইতলা থাকলেও পরবর্তীকালে এটিকে সংস্করণ করে তিনতলা করা হয়েছে। 

তাঁরা মসজিদ

পুরান ঢাকার আরমানিটোলায় অবস্থিত তাঁরা মসজিদ। ঢাকায় যে কয়টি ঐতিহ্যবাহী মসজিদ আছে, তারমধ্যে আরমানিটোলার এই তাঁরা মসজিদ অন্যতম। স্থানীয় লোকদের কাছ থেকে জানা যায়, এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয় আঠারো শতকের দিকে। অর্থাৎ ইংরেজদের আমলের! 

শুনা যায়, মির্জা গোলাম পীর এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। এই মসজিদের নাম তাঁরা মসজিদ হওয়ার কারণ হলো, মসজিদটির সাদা মার্বেল পাথরের গায়ে অসংখ্য তাঁরা আঁকা রয়েছে। এ থেকেই মসজিদটির নামকরণ করা হয় তাঁরা মসজিদ! মসজিদের প্রবেশপথে রয়েছে বিশাল আকৃতির একটি তাঁরা। মূলত এটি একটি ঝর্ণা। সন্ধ্যার আগে ঝর্ণাটি চালু করা হয়। মাঝে মাঝে মানুষ নামাজ শেষে এখানে এসে বসে। 

প্রথমদিকে তিনটি গম্বুজ থাকলেও পরবর্তীকালে আরো ২টি গম্বুজ নির্মাণ করা হয়। এখন সর্বমোট ৫টি গম্বুজ আছে। শুরুর দিকে মসজিদটি অনেক সাদামাটা ছিলো। পরবর্তীতে সংস্ক‍ারকার্য করে বর্তমান রূপ দেয়া হয়েছে। মসজিদের পিছনের বাম সাইডে রয়েছে একটি কবরস্থান। নির্মাতা মির্জা সাহেবকে এখানেই করব দেয়া হয়েছিলো। 

লোক মুখে জানা যায়, মসজিদের প্রথম ইমামকেও এখানে কবর দেয়া হয়েছে। প্রতিদিন এখানে হাজারো দেশি ও বিদেশী দর্শনার্থী ঘুরতে আসে। কোনো এক শুক্রবারে গিয়ে জুম্মার নামাজ পড়ে আসতে পারেন। সাথে উপভোগ করতে পারবেন ঐতিহ্যবাহী এ মসজিদটির অপরূপ সৌন্দর্য্য !

লালবাগ শাহী মসজিদ​

লালবাগ যেমন লালবাগ কেল্লার জন্য বিখ্যাত। ঠিক অপরদিকে লালবাগ শাহী মসজিদ এর জন্যও বিখ্যাত। প্রায় ৩০০ বছর আগের এই মসজিদটির নির্মাণকাল ছিলো ১৭০৩ সাল। তৎকালীন ঢাকার উপশাসক সম্রাট আওরঙ্গজেবের প্রপৌত্র ‘ফররুখশিয়র’ এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। ঢাকার মধ্যে যেসব বড় মসজিদ আছে তার মধ্যে এটি অন্যতম। এই মসজিদে একসাথে প্রায় ১,৫০০ লোক নামাজ পড়তে পারে। মসজিদটির মূল নকশা ঠিক রেখে এপর্যন্ত বহুবার এর সংস্করণ করা হয়েছে। এই মসজিদের কিবলার উপরের দিকে একটি গম্বুজ আছে। যা সচরাচর দেখা যায় না। প্রত্যেকটা মিহবারের দিকে ৩টি করে প্রবেশপথ রাখা হয়েছে। লালবাগ কেল্লা ঘুরতে গেলে অবশ্যই এই জায়গাটি দেখে আসতে পারেন !

চকবাজার শাহী মসজিদ

চকবাজার শাহী মসজিদ বাংলার এমন একটি মসজিদ, যা উদ্বোধন করেছিলেন বাংলার শেষ নবাব শায়েস্তা খাঁ। চকবাজার শাহী মসজিদ ঢাকার চকবাজারে অবস্থিত। বর্তমানের এর আয়তন আগে থেকে বৃদ্ধি করে দ্বিগুণ করা হয়েছে। এটি প্রায় চারশত বছর আগে নির্মাণ করা হয়েছে। দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে, মসজিদটি তার প্রথম নির্মাণ হারিয়েছে। অর্থাৎ প্রথমে যেভাবে নির্মাণ করা হয়েছিলো, বর্তমানে সংস্কার করে তা পরিবর্তন করে দেয়া হয়েছে। প্রথমদিকে তিনটি গম্বুজ নিয়ে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছিলো। মসজিদের আয়তন ছোট হওয়ার কারণে সামনের দিকে যে জায়গা রাখা হয়েছিলো, পরবর্তীকালে সেই জায়গায় মসজিদ এর কিছু অংশ নির্মাণ করা হয় !

মুসা খান মসজিদ

মুসা খানের মসজিদ বা মুসা খাঁর মসজিদ বাংলাদেশের ঢাকা শহরে অবস্থিত ছায়া সুনিবিড়, মোগল স্থাপত্যের অনুকরণে নির্মিত মসজিদ। এটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর শহীদুল্লাহ হল ছাত্রাবাসের নিকটে ও কার্জন হলের পিছনে অবস্থিত। ধারণা করা হয় যে, এই মসজিদটি ঈসা খাঁর পুত্র মুসা খান নির্মাণ করেন। ঢাকা শহরে বিনত বিবির মসজিদ এর পাশাপাশি এটি প্রাক-মুঘল স্থাপত্যের একটি নিদর্শন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল প্রাঙ্গণে শহীদুল্লাহ হলের উত্তর-পশ্চিম কোণে মুসা খাঁর মসজিদ নির্মিত হয় আনুমানিক ১৬৭৯ সালে। দৃষ্টিনন্দন এ মসজিদে রয়েছে তিনটি গম্বুজ। মসজিদটি নির্মাণ করা হয় তিন মিটার উঁচু একটি ভল্ট প্লাটফর্মের ওপর। ভল্ট প্লাটফর্মটি ১৭ মিটার দীর্ঘ ও ১৪ মিটার চওড়া। প্লাটফর্মের উপর নির্মিত মসজিদটির নিচতলায় কয়েকটি কক্ষ রয়েছে। এগুলোতে আগে মসজিদ সংশ্লিষ্টরা বাস করলেও এর সবগুলোই এখন পরিত্যক্ত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদ

পাকিস্তান আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে কেন্দ্রীয় জামে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। নির্মাণশৈলী, কারুকার্য ও নান্দনিকতায় মসজিদটি অনন্য। মসজিদটির তিন দিকে রয়েছে খোলা প্রাঙ্গণ। মসজিদের পিছনের দিকে রয়েছে সবুজের সমারোহ বৃক্ষারাজি দ্বারা আচ্ছাদিত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর: তৎকালীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড.ওসমান গনি ও অন্যান্য প্রফেসরগণ ও শিক্ষক-কর্মকর্তা ও বিশিষ্টজনদের উপস্থিতিতে ১৯৬৬ সালের ২০ ডিসেম্বর মসজিদটির ভিস্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। 

এ মসজিদটি পবিত্র রমজান মাসের এক শুক্রবারে উদ্বোধনের পর মাগরিবের নামাজ আদায় করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৩টি মসজিদের মধ্যে এটি সেন্ট্রাল মসজিদ হিসাবে গণ্য করা হয়। ৫ বিঘা জমির ওপর মসজিদটি প্রতিষ্ঠিত। মসজিদটির দু'টি মিনার, ভিতরে রয়েছে গোলাকার বেশ কিছু পিলার, কারুকার্য খচিত দরজা-জানালা, ঝাড়বাতি নয়টি, আলমারি ২টি। আলমারিতে রয়েছে কোরআন-হাদিসের প্রায় দুই শতাধিক অমুল্য বই। 

মসজিদের ভিতরে ২৩ কাতারে (লাইন) নামাজে দাঁড়ানোর ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতি কাতারে ৭৫-৮০ জন মুসল্লি দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করতে পারেন। এছাড়া মসজিদের বারান্দার অংশে রয়েছে আরো ১০টি কাতার। সেখানেও প্রতি কাতারে ৭৫-৮০ জন দাঁড়াতে পারে। প্রতি শুক্রবার মসজিদে দুই হাজারের অধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান নামাজ আদায় করেন।

ব্রেকিংনিউজ/এসপি

breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি