আজই সাদ অনুসারীদের কাকরাইল মারকাজ ছাড়ার নির্দেশ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২৭ মে ২০২০, বুধবার
প্রকাশিত: ১০:২২ আপডেট: ০৯:৩১

আজই সাদ অনুসারীদের কাকরাইল মারকাজ ছাড়ার নির্দেশ

তাবলিগ জামাতের আমির মাওলানা সাদ কান্ধলভীর অনুসারীদের আজকের মধ্যে রাজধানীর কাকরাইলের মারকাজ ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ। পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ী সাদ কান্ধলভীর বিরোধীরা এখন মারকাজে উঠবেন।

বুধবার (২৭ মে) গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম। 

তিনি বলেন, ‘সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সাদের অনুসারীরা কাকরাইল মারকাজে দুই সপ্তাহ অবস্থান করেন। আর সাদবিরোধীরা অবস্থান করেন চার সপ্তাহ। সাদ অনুসারীদের দুই সপ্তাহের সময়সীমা ২৫ মার্চ সরকারি ছুটি ঘোষণার সময়ই শেষ হয়ে যায়। তারপরও করোনাভাইরাসের কারণে বিশেষ পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়ায় তাদের থাকতে দেওয়া হয়। এখন সাদবিরোধীরা মারকাজে উঠতে চাচ্ছেন।’ 

ওসি বলেন, ‘দুই সপ্তাহ আগে দুই পক্ষকে ডেকে আনা হয়েছিল। তারা বসেই মারকাজ ছেড়ে দেওয়ার সময়সীমা নির্ধারণ করেছে।’

এদিকে মাওলানা সাদের অনুসারীরা বলছেন, বর্তমানে ১৩টি দেশের প্রায় ১৫০ জন অতিথি মারকাজে অবস্থান করছেন। করোনা সংক্রমণের এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব অতিথিদের অন্য কোথাও রাখার ব্যবস্থা নেই তাদের।

সাদ কান্ধলভীর অনুসারীদের অন্যতম মুরব্বি ওয়াসিফুল ইসলাম বলেন, ‘নির্ধারিত সময়ের চেয়ে বেশি দিন মারকাজে থাকার কোনও বাসনা আমাদের ছিল না। কিন্তু এ সময়ে বিদেশি অতিথিদের জন্যই থাকতে হলো। গুলিস্তানে একটি মসজিদে সাদ অনুসারীরা থাকেন। কিন্তু সেখানে করোনার স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৪৫ জনের বেশি থাকার সুযোগ নেই।’

তবে তাবলিগের বিদেশি অতিথিদের থাকার ব্যবস্থা সাদ অনুসারীদের নিজেদেরই করতে হবে বলে জানিয়েছেন ওসি মনিরুল।

অপরদিকে সাদবিরোধীদের মুরব্বি মো. আলমগীর হোসেন জানিয়েছেন, তাদের শতাধিক বিদেশি অতিথি যাত্রাবাড়ীর মদিনা মসজিদে অবস্থান করছে। করোনার এই কঠিন সময়ে সেখানে থাকার ব্যবস্থা ভালো না। অতিথিরা অনেক দিন ধরেই সেখানে কষ্ট করে আছেন। এজন্য তাদের মারকাজে সরিয়ে আনতে চাচ্ছেন তারা। আর সাদ অনুসারীদের থাকার সময়সীমাও তো শেষ।

সাদ কান্ধলভীর অনুসারীদের অন্যতম মুরব্বি ওয়াসিফুল ইসলামের পরামর্শ, মদিনা মসজিদে থাকা বিদেশি অতিথিদের কাকরাইল মসজিদের পাশেই একই সীমানায় সাদ বিরোধীদের নিয়ন্ত্রণে থাকা মাদরাসায় রাখা যেতে পারে। কারণ সেখানে অন্তত ৩টি তলা এখনও ফাঁকা রয়েছে। সাদবিরোধীরা তাদের অতিথিদের সেখানে রাখার ব্যবস্থা করলে কোনও পক্ষের বিদেশি অতিথিদেরই সমস্যায় পড়তে হয় না।

উল্লেখ্য, তাবলিগের প্রধান আমির মাওলানা সাদ কান্ধলভীকে মানা না-মানাকে কেন্দ্র করে ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমা থেকে বাংলাদেশ তাবলিগ জামাতের বিভেদ প্রকাশ্য হয়। ওই বছর থেকে বিশ্ব ইজতেমাও দুই ভাগে শুরু হয়। একপক্ষে সাদের অনুসারীরা। আর কওমি মাদরাসার আলেম ও হেফাজতে ইসলামের সমর্থকদের নিয়ে অন্যপক্ষে অবস্থান নেয় সাদবিরোধীরা।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি